kalerkantho

মঙ্গলবার । ৮ আষাঢ় ১৪২৮। ২২ জুন ২০২১। ১০ জিলকদ ১৪৪২

অপহরণ ও মুক্তিপণ দাবির অভিযোগ

গ্রেপ্তার র‌্যাব সদস্যরা সংঘবদ্ধ অপহরণকারী

অপহৃত তামজিদের বিরুদ্ধেও অনেকের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাজধানীর মগবাজার এলাকার বাসিন্দা তামজিদ হোসেনকে অপহরণের অভিযোগে গ্রেপ্তার র‌্যাব সদস্যরা সংঘবদ্ধ একটি অপহরণকারী গ্রুপের সদস্য। তাঁদের সঙ্গে গ্রেপ্তার হওয়া রানু বেগমকে রিমান্ডে নিয়ে এমন তথ্য জানা গেছে বলে জানিয়েছে তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্র।

এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হাতিরঝিল থানার এসআই সুব্রত দেবনাথ গতকাল শনিবার রাতে কালের কণ্ঠকে বলেন, রানু বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, গ্রেপ্তারকৃতরা একটি সংঘবদ্ধ অপহরণকারীচক্রের সদস্য। রানু ওই র‌্যাব সদস্যদের সহযোগী। পরস্পর যোগসাজশে তাঁরা তামজিদকে অর্থের জন্য অপহরণ করেছিলেন বলে প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে। তবে র‌্যাব সদস্যদের সঙ্গে রানুর পরিচয় কিভাবে, সেসবসহ অনেক বিষয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। রানুকে দুই দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। চক্রটি এর আগেও কাউকে অর্থের জন্য অপহরণ করেছে কি না জানতে চাইলে সুব্রত দেবনাথ বলেন, এমন তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি।

এদিকে আদালত ও তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, অপহৃত তামজিদ হোসেন গতকাল আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি কিভাবে অপহৃত হয়েছিলেন, জবানবন্দিতে এর বর্ণনা দিয়েছেন।

তামজিদ সম্পর্কেও বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে প্রতারণা করে বিপুল অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে মগবাজারের মীরবাগ এলাকার ১/২ নম্বর বাড়ির মালিক হাসানুজ্জামান টিপু কালের কণ্ঠকে জানান, তাঁর বাসাতেই বাবা, বোন ও স্ত্রীকে নিয়ে ২০১৯ সাল থেকে মাসিক ১৯ হাজার টাকায় ভাড়া থাকছেন তামজিদ। তাঁর দ্বিতীয় তলার ২/এ নম্বর ফ্ল্যাট ভাড়া নেন তাঁরা। এরপর তিন মাসের ভাড়া পরিশোধ করলেও আর কোনো ভাড়া দেননি তাঁরা। হাসানুজ্জামান টিপু তামজিদের কাছে ভাড়া বাবদ দুই লাখ ৫৫ হাজার টাকা পান। এমন অবস্থায় বাসা ছেড়ে দিতে বলেননি কেন জানতে চাইলে হাসানুজ্জামান বলেন, ‘দিচ্ছি-দেব বলে সে আমাকে আশ্বাস দিয়ে এলেও ভাড়া পরিশোধ করেনি। আবার বাসাও ছাড়েনি।’ তিনি আরো বলেন, ‘তামজিদকে অপহরণ করার কথা শুনেছি। তবে গত দুই দিন ধরে সেসহ পরিবারের কেউই বাসায় নেই।’ হাসানুজ্জামান জানান, তামজিদের কাছে অনেক মানুষ টাকা পাবে। জামিল হোসেন নামের একজন তাঁকে জানিয়েছেন, ফ্ল্যাট বিক্রি করার কথা বলে তামজিদ তাঁর কাছ থেকে সাড়ে ছয় লাখ টাকা নিয়েছেন। এ ছাড়া বিভিন্নজন এর আগে তামজিদের কাছে টাকা পাওয়ার কথা তাঁকে জানাত। 

র‌্যাব সূত্র জানিয়েছে, তামজিদকে অপহরণ করে অর্থ আদায়ের অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া র‌্যাব সদস্যদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত শুরু হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে রানু পুলিশকে জানিয়েছেন, রানু তামজিদের কাছে টাকা পেতেন। সেই টাকা তুলতে র‌্যাব সদস্যদের সহযোগিতা নেন তিনি। র‌্যাবের যে সদস্যরা গ্রেপ্তার হয়েছেন, তাঁদের মধ্যে রানুর আত্মীয় আছেন। এদিকে অপহৃত তামজিদ গতকাল আদালতে সাক্ষী হিসেবে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। প্রসঙ্গত, তামজিদকে অপহরণ করে দুই কোটি টাকা মুক্তিপণ দাবির অভিযোগে শুক্রবার র‌্যাবের চার সদস্য ও রানু বেগম নামের এক নারীকে গ্রেপ্তার করে হাতিরঝিল থানার পুলিশ।