kalerkantho

মঙ্গলবার । ৮ আষাঢ় ১৪২৮। ২২ জুন ২০২১। ১০ জিলকদ ১৪৪২

কিশোরদের দ্বন্দ্বে আ. লীগের দুই পক্ষ মুখোমুখি

লালমনিরহাটে সোমবার হরতাল ডেকেছে ছাত্রলীগ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি   

১১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্কুলপড়ুয়া কিশোরদের দুই দলের সৃষ্ট দ্বন্দ্বে নিজেদের জড়িয়ে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে লালমনিরহাট আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের একাংশ। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত বৃহস্পতিবার থেকে উত্তেজনা বিরাজ করছে উভয় পক্ষের মধ্যে। সর্বশেষ গতকাল শনিবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত শহরে উভয় পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়াধাওয়ির ঘটনা ঘটেছে। এদিকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাবেদ হোসেন বক্করসহ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের নামে মামলা প্রত্যাহার করা না হলে আগামীকাল সোমবার জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেওয়া হয়েছে।

দলীয় সূত্র ও পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার বিকেলের দিকে লালমনিরহাট রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় পুরনো দ্বন্দ্বের জেরে স্কুলপড়ুয়া কিশোরদের একটি দল পৌরসভার টিউমলপাড়ার কয়েক কিশোরকে মারধর করে। এ ঘটনার জন্য জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি ফরিদ হাসান সবুজকে দায়ী করে সন্ধ্যায় মারধরের শিকার কিশোরদের পক্ষ নিয়ে অন্তত অর্ধশত কিশোর স্টেশন এলাকায় এসে সবুজকে খুঁজতে থাকে। পরে কিশোরদের দলটি সাহেবপাড়ায় সবুজের বাসা লক্ষ্য করে ঢিল ছোড়ে। এতে সবুজের মা আহত হন বলে দাবি করা হয়। পরে লালমনিরহাট সদর থানার ওসির ফোনে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাবেদ হোসেন বক্কর ঘটনাস্থলে গিয়ে কিশোরদের সেখান থেকে সরিয়ে নেন। এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই বক্করকে প্রধান আসামি করে ২০ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি অভিযোগ করেন সবুজের মা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমানের বোন ফাতেমা বেগম। মামলায় ছাত্রলীগ নেতা বক্করকে আসামি করায় ওই দিন থেকে জেলা ছাত্রলীগের একাংশ ও পৌর ছাত্রলীগের মাঝে উত্তেজনা শুরু হয়। গত শুক্রবার জেলার হাতীবান্ধা ও পাটগ্রামে ছাত্রলীগ পৃথক বিক্ষোভ-সমাবেশ করে মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানায়। একই দিন সন্ধ্যায় পৌর ছাত্রলীগ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মামলা প্রত্যাহার না হলে আগামীকাল সোমবার জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেয়।

এ ঘটনার এক পর্যায়ে গতকাল দুপুরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সবুজের বাড়িতে হামলার অভিযোগে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের একাংশ। মিছিলটি শহরের স্বর্ণকারপট্টি এলাকায় পৌঁছলে ছাত্রলীগ ও পৌর মার্কেট এলাকার ব্যবসায়ীরা লাঠিসোঁটা নিয়ে মিছিলকারীদের ধাওয়া করে। পরে বিকেল পর্যন্ত উভয় পক্ষের মধ্যে কয়েক দফায় ধাওয়াধাওয়ির ঘটনা ঘটে।