kalerkantho

বুধবার । ৯ আষাঢ় ১৪২৮। ২৩ জুন ২০২১। ১১ জিলকদ ১৪৪২

করোনার টিকা

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পর্যালোচনা করছে ভারত

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনাভাইরাসের টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে পর্যালোচনা করছে প্রতিবেশী ভারত। টিকাদানের পর গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়া প্রায় ৭০০টি ঘটনা পর্যালোচনা করছে দেশটি। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকায় রক্ত জমাট বাঁধার দু-একটি ঘটনা নিয়ে বিশ্বব্যাপী উদ্বেগ তৈরি হওয়ার পর এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। চলতি সপ্তাহ নাগাদ এই পর্যালোচনার ফল প্রকাশ হতে পারে বলে টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশেও অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রয়োগ হওয়ায় অনেকের মধ্যে আতঙ্ক আছে। তবে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এ এস এম আলমগীর কালের কণ্ঠকে বলেন, বাংলাদেশে করোনা টিকাদানের পর এখন পর্যন্ত রক্ত জমাট বাঁধার কোনো ঘটনা ধরা পড়েনি। ফলে এ নিয়ে আলাদা কোনো কমিটি হয়নি।

এদিকে ভারতের টিকাদান-পরবর্তী জটিলতা বিষয়ক কমিটির (এইএফআই) একজন সদস্য বলছেন, ‘ইউরোপিয়ান মেডিসিনস এজেন্সি এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদনে উদ্বেগ প্রকাশ করার পর আমরা টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। ভারতের কোথাও টিকা নেওয়ার পর রক্ত জমাট বাঁধার মতো ঘটনা ঘটেছে কি না, তা অনুসন্ধান করা হচ্ছে। এই পর্যালোচনা বৈশ্বিক নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এখানে টিকার বিপুলসংখ্যক ডোজ প্রয়োগ করা হয়েছে।

গত বুধবার ইউরোপে ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থার (ইএমএ) পর্যালোচনার পর ভারত এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইএমএ বলেছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার সঙ্গে প্রাপ্ত বয়স্কদের রক্ত জমাট বাঁধার সম্পর্ক থাকতে পারে। তবে এই টিকা এখনো ঝুঁকিমুক্ত বলেই তারা মনে করে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডাব্লিউএইচও) মনে করে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার সঙ্গে রক্ত জমাট বাঁধার বিরল ঘটনা থাকতে পারে, তবে তা নিশ্চিত নয়। বিশ্বব্যাপী প্রায় ২০ কোটি মানুষ এরই মধ্যে এই টিকা নিয়েছেন, তার মধ্যে দু-একটি দুর্ঘটনা থাকতে পারে। রক্ত জমাট বাঁধার সঙ্গে ওই টিকার যোগসূত্র আছে কি না, তা নিশ্চিত হতে বিস্তর গবেষণা হওয়া দরকার।



সাতদিনের সেরা