kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

‘দেশে-বিদেশে বঞ্চিত রেমিট্যান্সযোদ্ধারা’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অভিবাসীরা দেশের বাইরে গিয়ে ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। দেশে ফিরে এসেও পরিবার নিয়ে অসহায় জীবন যাপন করছেন। করোনাকালে বিপুলসংখ্যক রেমিট্যান্সযোদ্ধা দেশে ফিরে এসেছেন। অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ, সামাজিক অবমূল্যায়ন, অর্থনৈতিক দুর্দশার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। এই সমস্যা সমাধানে জরুরি ভিত্তিতে তাঁদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। তাঁদের সহায়তার জন্য সরকারি-বেসরকারি সংস্থাগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। গতকাল মঙ্গলবার ‘কভিড-১৯ মহামারিতে ফিরে আসা ক্ষতিগ্রস্ত অভিবাসীদের পুনর্বাসনের বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলন’  শীর্ষক ভার্চুয়াল আলোচনাসভার দ্বিতীয় দিনে বক্তারা এসব কথা বলেন।

রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেশন মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিট (আরএমএমআরইউ), ম্যানিলাভিত্তিক    মাইগ্র্যান্ট ফোরাম ইন এশিয়া (এমএফএ) এবং ব্রিটিশ কাউন্সিলের আওতাধীন প্রমোটিং নলেজ ফর অ্যাকাউন্টেবল সিস্টেম (পিআরওকেএএস) যৌথভাবে দুই দিনব্যাপী এই সভার আয়োজন করে। আলোচনায় নেপাল, শ্রীলঙ্কা, ফিলিপাইন, ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশন (আইএমও), ইউএনডিপির প্রতিনিধিরা, ডাব্লিউএআরবিইর শফিকুল হক, সংসদ সদস্য তানভীর শাকিল জয় প্রমুখ যুক্ত হন।

সোমবার প্রথম দিনে বাংলাদেশে বর্তমান পরিস্থিতিতে সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে পুনর্বাসন এবং সরকার ও বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) করণীয় সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। অভিবাসন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক সি আর আবরার অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

বক্তারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রেক্ষাপটে ফিরে আসা অভিবাসীদের সমস্যা তুলে ধরেন। নারী অভিবাসী কর্মীদের সমস্যা ও ফেরার পর অর্থনৈতিকসহ প্রতিকূল পরিস্থিতির বিষয়ে আলোচনা করেন। বাংলাদেশে ফিরে আসা অভিবাসীদের জন্য সরকার থেকে নেওয়া কার্যক্রম, ব্যাংকের ঋণব্যবস্থা, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় থেকে গৃহীত পরিকল্পনা, ফরেন ইনক্রিমেন্ট বোর্ড (এফইবি) এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয়হীনতার অভাব, সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাব, ন্যায্য মজুরি ইত্যাদি বিষয় চিহ্নিত করা হয়।