kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

‘তাণ্ডব সৃষ্টিকারী হেফাজত নেতাকর্মীদের চিহ্নিত করা হয়েছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘তাণ্ডব সৃষ্টিকারী হেফাজত নেতাকর্মীদের চিহ্নিত করা হয়েছে’

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে সারা দেশে তাণ্ডব সৃষ্টিকারী হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের চিহ্নিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

গতকাল রবিবার জাতীয় সংসদে কার্যপ্রণালী বিধির ৩০০ ধারায় দেওয়া বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে বিবৃতি দেওয়ার সময় তিনি হেফাজতে ইসলামের নৈরাজ্য সৃষ্টিকারী কর্মকাণ্ডের পেছনে বিশেষ কোনো উদ্দেশ্য রয়েছে বলে দাবি করেন। মন্ত্রী বলেন, ‘এ ধরনের তাণ্ডব হঠাৎ করে হয়নি, নিশ্চয়ই কোনো উদ্দেশ্য আছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। যাঁরাই এর সঙ্গে থাকুন না কেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, ‘শনিবার নারায়ণগঞ্জের একটি রিসোর্টে মামুনুল হক একজন নারীকে নিয়ে অবস্থান করছিলেন। টিভিতে সুন্দরভাবে ওই মহিলা সম্পর্কে তথ্য দেখানো হয়েছে। মামুনুল হক নিজের মুখেই স্বীকার করেছেন ওই মহিলা তাঁর স্ত্রী নন। এই বিষয়গুলো তদন্ত করে আরো জেনে সবাইকে জানাব।’ তিনি বলেন, শনিবারের এই ঘটনার পর কার আহ্বানে, কেন রিসোর্টটি ভাঙচুর করা হলো? সেখানে বিদেশি কয়েকজন ছিলেন। পুলিশ ও বিজিবি গিয়ে সেই বিদেশিদের রক্ষা করেছে।

মন্ত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ২৬ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসা, সিলেট ও নারায়ণগঞ্জে সহিংসতা দেখেছি, যা চরম ধৈর্যের সঙ্গে মোকাবেলা করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। হাটহাজারীতে মাদরাসাছাত্ররা বের হয়ে থানা আক্রমণ করে। সেখানে এক বাংলোতে থাকা পুলিশের একজন বিসিএস কর্মকর্তাকে মেরে আহত করা হয়। তিনি সিএমএইচে চিকিৎসাধীন।

মন্ত্রী আরো বলেন, পুলিশের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে তারা এই আক্রমণ চালাল এবং পুলিশ বাধ্য হয়ে জানমাল রক্ষার জন্য গুলি করল। এই উত্তেজনা ছড়িয়ে দেওয়ার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাদরাসা থেকে ছাত্ররা বের হয়ে এসে বিভিন্ন জায়গায় ভাঙচুর শুরু করল। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি পর্যন্ত ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হলো। ওই সব ঘটনায় ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।