kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ

কপিরাইট ফিরে পেল বঙ্গবন্ধু পরিবার

নিখিল ভদ্র   

৯ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে ইউনেসকোর স্বীকৃতি পাওয়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের কপিরাইট (মেধাস্বত্ব) ফিরে পেয়েছে বঙ্গবন্ধু পরিবার। দীর্ঘ আইনি প্রক্রিয়া শেষে গত ফেব্রুয়ারি মাসে এই ভাষণের নামে নেওয়া ভারতীয় একটি কম্পানির ডিজিটাল লাইসেন্স বাতিল হয়েছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের জটিলতা এড়াতে বঙ্গবন্ধুর অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ভাষণের কপিরাইট নিবন্ধনের কাজ শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ তখনকার রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) যে মহাকাব্যিক ভাষণ দেন, সেটি ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর ইউনেসকোর তালিকাভুক্ত হয়। ১৯ মিনিটের এই ভাষণটি বেশি জনপ্রিয় হলেও বঙ্গবন্ধুর অন্য ভাষণগুলোর প্রতিও মানুষের আগ্রহ রয়েছে। ইউটিউব, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও নানা গবেষণা গ্রন্থে ভাষণগুলো অত্যন্ত আদরণীয় হয়ে উঠেছে। কোনো কোনো ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান কালজয়ী ভাষণগুলো অনলাইন মাধ্যমে আপলোড করে অর্থও আয় করছে। একই উদ্দেশ্যে ভারতীয় কম্পানি ইনরেকো এন্টারটেইনমেন্ট প্রাইভেট লিমিটেড ৭ই মার্চের ভাষণটি নিজেদের নামে ডিজিটাল লাইসেন্স করে নিয়েছিল, যা বাংলাদেশের কোনো মন্ত্রণালয়ের জানা ছিল না। তবে সেই লাইসেন্স বাতিল হওয়ায় কপিরাইটের ৭৮ ধারা অনুযায়ী, ভাষণটির নৈতিক মেধাস্বত্ব ফিরেছে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার কাছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণটির কপিরাইট ফিরিয়ে আনতে বড় ভূমিকা রেখেছেন কপিরাইট বিশেষজ্ঞ ব্যারিস্টার ওলোরা আফরিন, যিনি লাইসেন্সিং অ্যান্ড কালেকটিং সোসাইটি ফর সিনেমাটোগ্রাফ ফিল্মের (এলসিএসসিএফ) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। এ ছাড়া উইমেন ইন আইপি বাংলাদেশের দায়িত্ব পালন করছেন।

গতকাল সোমবার ব্যারিস্টার ওলোরা আফরিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ইনরেকো এন্টারটেইনমেন্ট প্রাইভেট লিমিটেড নামের ভারতীয় একটি কম্পানি ২০১২ সাল থেকে ভাষণটি বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ব্যবহার করছে। তারা ‘রক্তের প্রতিশোধ রক্ত নিব’ এবং ‘শোনো একটি মুজিবরের থেকে’ নামে লাইসেন্স নিয়েছে। সেটি প্লে করলে ৭ই মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুরু হয়।

ব্যারিস্টার ওলোরা বলেন, ইউনেসকোর ফরম অনুযায়ী, বাংলাদেশের আইসিটি মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ ও বাংলাদেশ বেতার—এই চারটি জায়গায় ঐতিহাসিক ভাষণটির সম্পূর্ণ মালিকানা রয়েছে। কিন্তু কপিরাইটের বিষয়ে কিছু বলা না থাকায় বিভিন্ন কম্পানি ভাষণটির অপব্যবহার করছিল, যা ডিজিটাল কপিরাইট আইন ৭৮-এর নৈতিক লঙ্ঘন। গত ২৩ আগস্ট ইনরেকো এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেডকে উকিল নোটিশ পাঠান তাঁরা। পরে তাদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়। তারা এখন ডিজিটাল লাইসেন্সটি অবমুক্ত করেছে।

এ বিষয়ে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, ‘ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণটির কপিরাইট নিশ্চিত হয়েছে। আমরা বঙ্গবন্ধুর অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ভাষণের কপিরাইট নিবন্ধন করার বিষয়ে কাজ করছি।’



সাতদিনের সেরা