kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

অবৈধ স্ট্যান্ডের নগর সিলেট

আহমেদ নূর, সিলেট   

৬ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



খোদ নগর সংস্থাও জানে না সিলেট নগরে গাড়ির অবৈধ স্ট্যান্ডের সংখ্যা কত। ব্যস্ততম সব পয়েন্টসহ নগরজুড়ে একের পর এক অবৈধ স্ট্যান্ড। পরিবহন শ্রমিকরা বিভিন্ন সমিতি করে এই স্ট্যান্ডগুলো গড়ে তুলেছেন। পাশাপাশি নগরের যে সড়কই সম্প্রসারিত হচ্ছে, সেখানেই গড়ে উঠছে অবৈধ স্ট্যান্ড। এসব স্ট্যান্ড থেকে নিয়মিত চাঁদাও তোলা হয়। আর এই চাঁদার অর্থ ভাগ-বাটোয়ারা করে প্রশাসনসহ অন্যদের ম্যানেজ করেই চলছে অবৈধ স্ট্যান্ডগুলো।

সিলেট নগরের ব্যস্ততম চৌহাট্টা পয়েন্ট ঘিরে রয়েছে পাঁচটি কার ও মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড। একইভাবে আম্বরখানা পয়েন্টের চার মোড়ে চারটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা স্ট্যান্ড। আম্বরখানার আশপাশে আছে আরো একাধিক স্ট্যান্ড। শুধু আম্বরখানা থেকে মজুমদারি পর্যন্ত রয়েছে চারটি অটোরিকশা স্ট্যান্ড। কোর্ট পয়েন্ট ঘিরে রয়েছে চারটি স্ট্যান্ড। একইভাবে গুরুত্বপূর্ণ প্রায় সব পয়েন্টে একাধিক স্ট্যান্ড রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে।

পুলিশের হিসাবে প্রায় দেড় শ অবৈধ স্ট্যান্ড রয়েছে নগরে। তবে নগর এলাকায় বাস্তবে ঠিক কতটি অবৈধ স্ট্যান্ড রয়েছে, তার হিসাব নেই সিলেট সিটি করপোরেশনের কাছে।

সিলেট নগরে সার্ভিস গাড়ির সংখ্যা সরকারি হিসাবে দুই শর মতো, কিন্তু বাস্তবে সংখ্যাটি কয়েক হাজার। নগরের অন্তত ২৭টি জায়গায় সড়ক দখল করে গড়ে ওঠা অবৈধ স্ট্যান্ডে প্রতিদিন এসব গাড়ি বেআইনিভাবে ‘সার্ভিস গাড়ি’ হিসেবে চলাচল করছে। ফলে যানজট এখন নগরবাসীর নিত্যসঙ্গী।

প্রবাসীবহুল সিলেটে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এখন গাড়ির বহুমুখী ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় পরিস্থিতির আরো অবনতি হচ্ছে। নগরে প্রাইভেট কারগুলোও এখন অবৈধভাবে গাড়িভাড়া ব্যবসায় ঝুঁকে পড়েছে। ফলে একের পর এক অবৈধ স্ট্যান্ড গড়ে উঠছে।

সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, নগরের সুবিদবাজার, চৌহাট্টা, শাহী ঈদগাহ, নাইওরপুল, শাহজালাল ব্রিজ, ধোপাদিঘিরপার, টিলাগড়, কদমতলী, ওসমানী এয়ারপোর্ট এবং শহরতলীর কুমারগাঁও, শাহপরান ও চণ্ডিপুল এলাকায় ১৬টি অবৈধ স্ট্যান্ড রয়েছে। এর মধ্যে ভিআইপি সড়ক চৌহাট্টায়ই রয়েছে পাঁচটি লাইটেস স্ট্যান্ড।

অন্যদিকে নগরের কোর্ট পয়েন্ট, রংমহল পয়েন্ট, আম্বরখানা, মেডিক্যাল রোড, সোবহানীঘাট, উপশহর, টিলাগড়, মদিনা মার্কেট, ওসমানী এয়ারপোর্ট এলাকায় ১১টি স্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার মোড়ে গড়ে উঠেছে অটোরিকশা ও টেম্পো স্ট্যান্ড। নগরের সোবহানীঘাট, মেন্দিবাগ, সরকারি পাইলট স্কুলের সামনে, শেখঘাট, সার্কিট হাউস রোড, সুরমা পয়েন্ট, দর্শনদেউড়ি এবং আলমপুরে রয়েছে ট্রাকের অবৈধ স্ট্যান্ড।

সিলেটের অন্যতম ব্যস্ততম চৌহাট্টা-আম্বরখানা সড়কের দুই পাশ দখল করে কমপক্ষে ৩০০ প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাস রাখা হয়। সুবিদবাজারে প্রাইমারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের সামনেও একটি স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। এখন এখানে গাড়ির সংখ্যা ৬০ থেকে ৬৫টি। এসব স্ট্যান্ড নিয়ন্ত্রণ করে পৃথক সমিতি।

সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরাও ভাবছি। এরই মধ্যে ট্রাক টার্মিনাল বড় করে অন্যত্র নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালেও উন্নয়নকাজ করে বড় করা হয়েছে। ছোট গাড়িগুলোর জন্য এরই মধ্যে চারটি জায়গা নির্ধারণের জন্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি গাড়ি চলাচলের ক্ষেত্রে আমরা ভিন্ন পরিকল্পনা নিচ্ছি। আশা করছি, শিগগিরই এসবের সমাধান করা যাবে।’

 

মন্তব্য