kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

স্বপ্ন পুড়ে ছাই গাজীপুরের ৭০০ শ্রমিক পরিবারের

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

২ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কারখানা থেকে ফিরে শ্রমিকদের কেউ সবে ক্লান্ত শরীর এলিয়ে দিয়েছেন বিছানায়। কেউ আধো ঘুমে। হঠাৎ কলোনির একাংশে দাউদাউ করে জ্বলতে থাকে আগুন। শুরু হয় নিজে বাঁচার, পরিবারের অন্যদের বাঁচানোর আর জিনিসপত্র রক্ষার চেষ্টা, দৌড়ঝাঁপ, চিৎকার, কান্নাকাটি। কেউ পানি ঢালছে, কেউ বালি ছিটিয়ে প্রাণপণ চেষ্টা করছে মাথা গোঁজার আশ্রয় এবং তিলতিল করে গড়া স্বপ্ন বাঁচাতে। আসে ফায়ার সার্ভিসও। কিন্তু তারা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার আগেই পুড়ে ছাই হয়ে যায় ৭০০ শ্রমিকের ঘরবাড়িসহ সব সম্পদ।  

গতকাল সোমবার সকালে গাজীপুর মহানগরীর বাইমাল এলাকার পুড়ে যাওয়া শ্রমিক কলোনিতে গিয়ে দেখা গেছে শুধুই হাহাকার। গত রবিবার রাতে পুড়ে যাওয়া জিনিসপত্রের মধ্যে কেউ কেউ কিছু খুঁজছে। কেউ ফুঁপিয়ে কাঁদছেন। কেউ নির্বাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাওয়া বিছানা, আসবাব ও হাঁড়ি-পাতিলের দিকে।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় লোকজন জানায়, কোনাবাড়ী বাইমাইল এলাকায় কয়েকটি কলোনি মিলিয়ে ৭০০ ঘর রয়েছে। বিভিন্ন গার্মেন্টের শ্রমিকরা এসব ঘরে ভাড়া থাকতেন। রবিবার রাত ৮টার দিকে বাচ্চু মিয়ার কলোনি থেকে আগুনের সূত্রপাত। মুহূর্তের মধ্যে তা পাশের রত্না বেগম, শফিকুল ইসলাম ও হুমায়ুনের কলোনিতে ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিটের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছলেও সরু রাস্তা আর ঘিঞ্জি পরিবেশের কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়ে। রাত ১১টার দিকে তাঁরা আগুন নেভাতে পারেন। কিন্তু এর মধ্যে বেশির ভাগ বাসিন্দার জিনিসপত্র, জমানো টাকা চোখের সামনেই পুড়ে যায়। খবর পেয়ে রাতে ঘটনাস্থলে ছুটে যান গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম।



সাতদিনের সেরা