kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

অর্ধেকের নিচে নেমেছে মাস্কের ব্যবহার

♦ নির্দেশনা তুলে নেয়নি সরকার
♦ অভাব নজরদারির

মোবারক আজাদ   

২ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশজুড়ে চলছে করোনার টিকাদান কর্মসূচি। পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধির অংশ হিসেবে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। কিন্তু নজরদারির অভাবে সরকারের এই নির্দেশনা মানছে না রাজধানীসহ দেশের অন্য প্রান্তের মানুষ। বর্তমানে রাজধানীতে অন্তত অর্ধেক মানুষ মাস্ক ব্যবহার করছে না। গত দুই দিন সরেজমিনে রাজধানীর নিউ মার্কেট, এলিফ্যান্ট রোড, গুলিস্তান, বঙ্গমার্কেট, নীলক্ষেত, আজিমপুর, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, শাহবাগ, কারওয়ান বাজার, পল্টন, রামপুরা, মহাখালী, ফার্মগেট, বাড্ডা, নতুন বাজার এবং দূরপাল্লার বিভিন্ন বাস কাউন্টার ঘুরে দেখা গেছে এমন দৃশ্য। চলাচলে মানা হচ্ছে না দূরত্ব বজায় রাখাও। দূরপাল্লার বাসের যাত্রী, আর যারা মাস্ক বিক্রি করছে তাদের মুখেও দেখা যায়নি মাস্ক।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে গত বছর ২১ জুলাই দেশের সব নাগরিকের মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করে পরিপত্র জারি করেছে সরকার। এরপর নাগরিকদের মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে সক্রিয় হয় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে নাগরিকদের মাস্ক ব্যবহারের প্রবণতা ক্রমে কমছে। ব্যাংক, বীমা, সরকারি-বেসরকারি অফিসে সেবা পেতে মাস্ক ব্যবহার করা হলেও রাস্তাঘাট, গণপরিবহন, পর্যটন স্পট, রেস্টুরেন্ট, হোটেল ও  শপিং মলে এখন আর স্বাস্থ্যবিধি মানছে না কেউ। যারা ব্যবহার করছে তাদের অনেকে মাস্ক খুলে পকেটে রাখছে। কোনো অফিসে গেলে ব্যবহার করছে। অফিস থেকে বেরিয়ে আবার খুলে ফেলছে। করোনা মোকাবেলায় বিভিন্ন এলাকায় স্থাপন করা হাত ধোয়ার বেসিনগুলোও আর নেই।

নিউ মার্কেট ওভারব্রিজের পাশে কসমেটিক বিক্রেতা হৃদয় বলেন, ‘মাস্ক ব্যবহার করলে গরম লাগে। পুলিশও কিছু বলে না। তাই এখন আর মাস্ক ব্যবহার করি না।’

গুলিস্তান এলাকার ফুটপাতের দোকানি আলী নূর বলেন, ‘শীতকালেই করোনা গরিব মানুষের কিছু করতে পারেনি। এখন তো টিকা এসেছে, গরমও চলে এসেছে; সুতরাং আর ভয় নাই। আর ভাই, আমাদের ডাকাডাকি করে কাস্টমার ভিড়াতে হয়, মাস্ক পরে সেটা সম্ভব না। দূরপাল্লার বাসে অনেকে মাস্ক ব্যবহার করছে না কেন—জানতে চাইলে গুলিস্তান বাস কাউন্টারের টিকিট মাস্টার খাদেমুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘যাত্রীদের বলার পরও অনেকে ব্যবহার করছে না। এতে তো আমরা তাদের বাধ্য করতে পারি না। এটা নিশ্চিত করার দায়িত্ব প্রশাসনের।’

দেশের জেলা উপজেলা শহরগুলোতে একই অবস্থা। এসব বিষয়ে ওই সব এলাকায় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরাও আর আগের মতো তৎপর নন।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে অনেকের মুখে মাস্ক না থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত আনসার বাহিনীর সদস্য রবিউল বলেন, ‘আমরা কতজনকে বোঝাব! অনেকে রীতিমতো দুর্ব্যবহার করে। উপরমহল থেকে কড়াকড়ি নির্দেশনা না থাকায় অনেকে এখন আর মাস্ক ব্যবহার করছে না। সরকার এখনো মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশনা তুলে নেয়নি। স্বাস্থ্যবিধি মানার অন্যতম অংশ হিসেবে সবার মাস্ক ব্যবহার করা উচিত।’

ভিক্টর বাসের হেলপার জমিমের মুখে মাস্ক নেই কেন—জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘গরম চলে আসছে তাই সব সময় মাস্ক পরতে ভালো লাগে না। তবে সঙ্গে আছে মাস্ক। ট্রাফিক পুলিশ  গাড়ি ধরলে তখন মাস্ক পরি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা