kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

সংক্ষিপ্ত
নোয়াখালীতে বিবস্ত্র ভিডিও, ধর্ষণ

স্বীকারোক্তি, রিমান্ড অপহৃতা উদ্ধার

নোয়াখালী প্রতিনিধি   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের আলাইয়াপুর ইউনিয়নে এক মাদরাসাছাত্রীর বিবস্ত্র ভিডিও ধারণ করে ফেসবুকে ভাইরালের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ ও অপহরণের ঘটনায় গ্রেপ্তার ফয়সাল (২২) স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। গতকাল শনিবার নোয়াখালী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় তিনি জবানবন্দি দেন। আরেক আসামি সাইফুল ইসলাম ইমনের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে তিন দিন এবং পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল বিকেলে বেগমগঞ্জ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রুহুল আমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, অপহৃত মাদরাসাছাত্রীকে গত শুক্রবার রাতে ঢাকার সাভারের একটি বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এ সময় কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। ছাত্রীটির মায়ের করা মামলা থেকে জানা যায়, বেগমগঞ্জ উপজেলার আলাইয়ারপুরের হীরাপুর গ্রামের কাজী সিরাজের ছেলে ফয়সাল, একই গ্রামের লেদনের ছেলে জোবায়ের (২৩), নুরুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম ইমন (২৩) এবং সোনাইমুড়ীর কামাল হোসেনের ছেলে সামছুল হক রাসেল (২৬) অষ্টম শ্রেণির মাদরাসাছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বারকে জানায় ভুক্তভোগী পরিবার। এতে তাঁরা ক্ষিপ্ত হয়ে ২০১৮ সালের ৩ মার্চ ভুক্তভোগীর বাড়িতে গিয়ে কৌশলে মেয়েটির মাকে কোমল পানীয়ের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করেন। এরপর মেয়েটিকে অস্ত্রের মুখে ধর্ষণ ও ভিডিও করেন। পরে মোজাম্মেল হোসেন নামের এক দোকানিকে ডেকে এনে জোর করে ভুক্তভোগীর সঙ্গে দাঁড় করিয়ে উভয়কে বিবস্ত্র করাসহ ভিডিও করেন। অভিযুক্তরা ভিডিওটি ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে টাকা, স্বর্ণালংকার নিয়ে যান এবং একাধিকবার ভুক্তভোগীকে ধর্ষণ করেন।

মন্তব্য