kalerkantho

শনিবার । ২৭ চৈত্র ১৪২৭। ১০ এপ্রিল ২০২১। ২৬ শাবান ১৪৪২

মাদক কারবারে যোগসাজশের মামলায় দুই পুলিশ গ্রেপ্তার

পঞ্চগড় প্রতিনিধি   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অবৈধভাবে ভারতে যাওয়াসহ সীমান্তে দুই দেশের মাদক কারবারিদের সঙ্গে যোগসাজশ থাকার অভিযোগে পুলিশের দুই সদস্যের নামে মামলা হয়েছে। এ মামলায় গতকাল মঙ্গলবার পঞ্চগড় পুলিশ লাইনে কর্মরত সহকারী উপপরিদর্শক মোশারফ হোসেন (৪০) ও কনস্টেবল ওমর ফারুককে (২৪) গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার এই দুই পুলিশ সদস্যসহ চারজনকে আসামি করে পঞ্চগড় সদর থানায় মামলা করেন থানার উপপরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমান। বাকি দুই আসামি হলেন পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাঁড়িভাসা ইউনিয়নের মোমিনপাড়া এলাকার মাদক কারবারি আমিরুল ইসলাম (৪৫) ও মাসুদ নামের আরেক ব্যক্তি। মাসুদের পরিচয় নেই এজাহারে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, মাদক কারবারি আমিরুলের সঙ্গে এএসআই মোশারফ, কনস্টেবল ফারুক ও মাসুদ রবিবার রাতে পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাঁড়িভাসা মোমিনপাড়া সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে ভারতের সিপাইপাড়া এলাকার মাদক কারবারি ভুট্টুর বাড়িতে যান। সেখানে কোনো একটি বিষয়ে তাঁদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে দুই পুলিশ সদস্য ভুট্টুকে হাতকড়া লাগিয়ে নিয়ে আসতে চাইলে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী তাঁদের ধাওয়া দেয়। কনস্টেবল ফারুককে ধরে তারা মারধর করে। অন্যরা পালিয়ে আসেন। পরে ফারুককে পাশের চানাকিয়া ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী—বিএসএফ ক্যাম্পের সদস্যরা ধরে নিয়ে যান। রাতেই পুলিশ হাঁড়িভাসার টেনশন মার্কেট থেকে ফারুকের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল উদ্ধার করে। সোমবার সন্ধ্যায় পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে ফারুককে ফেরত এনে পুলিশের হাতে তুলে দেয় বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ)।

অভিযোগে আরো বলা হয়েছে, এই দুই পুলিশ সদস্যের সঙ্গে মাদক কারবারিদের যোগাযোগ রয়েছে। তাঁরা মাঝেমধ্যেই সীমান্ত এলাকায় যাতায়াত করতেন।

পঞ্চগড় সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জামাল হোসেন বলেন, বাকি দুই আসামি পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য