kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

নরওয়ের আরো বিনিয়োগ আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নরওয়ের আরো বিনিয়োগ আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

বাংলাদেশে নিযুক্ত নরওয়ের রাষ্ট্রদূত এস্পান রিকটার সুইভেনসেন গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নরওয়েকে বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বড় অঙ্কের বিনিয়োগ নিয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ভৌগোলিক কারণে বাংলাদেশের অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এখানে বিনিয়োগ করা হলে এর মাধ্যমে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বাজারে প্রবেশ সম্ভবপর হবে।’

বাংলাদেশে নিযুক্ত নরওয়ের রাষ্ট্রদূত এস্পান রিকটার সুইভেনসেন গতকাল রবিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেসসচিব এম এম ইমরুল কায়েস বৈঠকের পরে এ বিষয়ে ব্রিফিংকালে এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী নরওয়েকে বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিশেষ করে আইসিটি এবং পরিবেশবান্ধব পাট খাতে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে বলেন, কেননা দেশে এখন বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ বিরাজ করছে।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ১৯৭১ সালে এবং যুদ্ধের পর জাতি পুনর্গঠনে নরওয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ায় শেখ হাসিনা নরওয়ের প্রতি তাঁর কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করেন।

নরওয়ের রাষ্ট্রদূত বলেন, তাঁর দেশ সেসব দেশের মধ্যে রয়েছে, যারা মুক্তিযুদ্ধের পরপরই বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছে। স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর থেকে নরওয়ে বাংলাদেশকে সহযোগিতা প্রদান করে যাচ্ছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, তাঁর দেশ বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ উন্নয়ন সহযোগী।

মালয়েশিয়ার হাইকমিশনার হাজনাহ মো. হাশিম পরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর বাসভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী দেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলসহ সারা দেশে এলএনজির প্রয়োজনীয়তার উল্লেখ করলে হাইকমিশনার বাংলাদেশে এলএনজি রপ্তানির বিষয়ে আগ্রহ ব্যক্ত করেন। রাষ্ট্রদূত আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে শিগগিরই দুই দেশ পিটিএ (প্রেফারেন্সিয়াল ট্রেড অ্যাগ্রিমেন্ট) স্বাক্ষর করবে। তিনি রোহিঙ্গা সমস্যায় বাংলাদেশের প্রতি সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস প্রদান করে বলেন, এ ব্যাপারে তারা সব সময় বাংলাদেশের পক্ষে রয়েছে।

বৈঠকে মালয়েশিয়ার হাইকমিশনার তাঁর দেশের প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানান এবং প্রধানমন্ত্রীও মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনই একমাত্র সমাধান : প্রধানমন্ত্রীকে তুর্কি রাষ্ট্রদূত

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের নিজ মাতৃভূমি মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেওয়ার মধ্যেই এই সংকটের একমাত্র সমাধান দেখছে তুরস্ক। বাংলাদেশে তুরস্কের নতুন রাষ্ট্রদূত মুস্তফা ওসমান তুরান গতকাল গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে তাঁর দেশের এই দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন।

পরে প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেসসচিব এম এম ইমরুল কায়েস বৈঠকের বিষয়ে সাংবাদিকদের জানান। তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারের নাগরিকদের নিজ মাতৃভূমিতে প্রত্যাবর্তনই রোহিঙ্গা সংকটের একমাত্র সমাধান বলে উল্লেখ করেন তুরস্কের রাষ্ট্রদূত। রোহিঙ্গা সংকটে তুরস্ক বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলেও তিনি জানান।’ প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে তুরস্কের প্রেসিডেন্টকে শুভেচ্ছা জানান।



সাতদিনের সেরা