kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষক বরখাস্তের প্রতিবাদে সমাবেশ, আইনি নোটিশ

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে (খুবি) শিক্ষার্থীদের পাঁচ দফা আন্দোলনে সংহতি জানানো তিন শিক্ষককে বরখাস্ত ও অপসারণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ করা হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে প্রায় ২০ জন শিক্ষার্থী এই সমাবেশে অংশ নেন। এর আগে একই স্থানে একই দাবিতে প্রায় ১০ জন শিক্ষক প্রতিবাদ কর্মসূচি করেন।

শিক্ষার্থীরা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রতিবাদ কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্কের ঘোষণার মতো ৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বরখাস্ত ও অপসারণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করা না হলে আরো কঠোর কর্মসূচিতে যাওয়ার আলটিমেটাম দেওয়া হয়।

একই দিন ওই তিন শিক্ষকের চাকরিচ্যুত করার সিদ্ধান্ত বাতিল চেয়ে তাঁদের আইনজীবী ব্যারিস্টার  জ্যোতির্ময় বড়ুয়া খুবি উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, রেজিস্ট্রারসহ ১০ জনকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন।

নোটিশ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওই তিন শিক্ষকের বরখাস্ত ও অপসারণের আদেশ প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে। নোটিশে শিক্ষকরা আইনি বিভিন্ন ব্যত্যয় ছাড়াও সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত আক্রোশে, বিনা কারণে ও প্রমাণ ছাড়াই গুরুদণ্ড প্রদানের অভিযোগ তুলেছেন।

সমাবেশে শিক্ষার্থীরা বলেন, ন্যায্য দাবি আদায়ের আন্দোলনে সমর্থন করায় তিন শিক্ষকের ওপর শাস্তির খড়্গ নেমে এসেছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এই শাস্তি ইঙ্গিত দেয় ভবিষ্যতে কেউ শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ালে তাঁদেরও বরখাস্ত করা হবে। তাঁরা আরো বলেন, সারা দেশের ছাত্রসমাজ, শিক্ষকমণ্ডলী, সচেতন নাগরিক, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেটওয়ার্কসহ অনেকেই তাঁদের সঙ্গে আছে। তাই তিন শিক্ষককে বরখাস্ত ও অপসারণের সিদ্ধান্ত অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে।

বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সাধন মণ্ডল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তচিন্তা চর্চার জায়গা। কিন্তু এখানে যদি ব্যক্তি রোষানলের শিকার হয়ে কাউকে চাকরিচ্যুত করা হয়, সেটা দুঃখজনক।

গত ২৩ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের ২১২তম সভায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উসকানি, অসদাচরণ, প্রশাসনবিরোধী কার্যক্রমসহ নানা অভিযোগে বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. আবুল ফজলকে বরখাস্ত এবং ইতিহাস সভ্যতা বিভাগের প্রভাষক হৈমন্তী শুক্লা কাবেরী ও বাংলা বিভাগের প্রভাষক শাকিলা আলমকে চাকরি থেকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।



সাতদিনের সেরা