kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১২ রজব ১৪৪২

বিশেষজ্ঞ মত

পরিবেশ রক্ষায় পাহাড় কাটা বন্ধ জরুরি

ড. মো. আজহারুল ইসলাম

৩১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরিবেশ রক্ষায় পাহাড় কাটা বন্ধ জরুরি

প্রাকৃতিক পাহাড় আমাদের অমূল্য সম্পদ। পরিবেশ তথা ইকোসিস্টেমকে ঠিক রাখতে হলে আমাদের অবশ্যই এ সম্পদকে টিকিয়ে রাখতে হবে। কিন্তু বর্তমানে পাহাড় কাটা যেন নিয়মিত ঘটনা। সড়ক নির্মাণ থেকে শুরু করে আবাসন প্রকল্প—সব ধরনের উন্নয়নকাজ করতে গেলেই প্রথম আঘাতটি আসে পাহাড় ও পাহাড়ের আশপাশের গাছপালার ওপর। এটি মোটেই সমীচীন নয়।

নির্বিচারে গাছপালা ও পাহাড় কাটার কারণে প্রতিবছরই ভূমিধসের ঘটনা বাড়ছে। জনসংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পাহাড়ের এমন অনেক জায়গায় এখন বসতি গড়ে উঠছে, যেটি একসময় চিন্তাও করা যায়নি। এমনকি পাহাড় কেটে দর্শনীয় স্থান তৈরি করাও পরিবেশের জন্য হুমকির, অথচ এ কাজ প্রতিনিয়ত করা হচ্ছে। এর ফলে বর্ষায় বৃষ্টির পানিতে পাহাড়ি মাটি নেমে এসে শহরের নালা ভরাট হচ্ছে। অন্যান্য পাহাড়ের শক্ত ভিত দুর্বল হয়ে বিলীন হচ্ছে। উজাড় হচ্ছে গাছপালা, ধ্বংস হচ্ছে জীববৈচিত্র্য। দেশের সর্বোচ্চ আদালত থেকে পাহাড় কাটা বন্ধ করার জন্য নির্দেশনা আছে। কিন্তু সত্যিকার অর্থে এর বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেই। এমনকি পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫-এর ৬ (খ) ধারা অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান সরকারি বা আধাসরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন বা দখলাধীন বা ব্যক্তিমালিকানাধীন পাহাড় ও টিলা কাটা বা মোচন করতে পারবে না বলেও উল্লেখ আছে।

পাহাড় কাটা থামানো না গেলে পরিবেশ বিপর্যয় ও মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হবে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে যেসব ঘটনা গণমাধ্যমে আসে, সেগুলোতেই শুধু অভিযান চালানো হয়। এর বাইরে আরো অনেক জায়গায় পাহাড় কাটা চলছে। অনেক সময় শুধু জরিমানা করেই তারা দায়িত্ব শেষ করে। এরপর পাহাড়কে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের উল্লেখযোগ্য কোনো পদক্ষেপ চোখে পড়ে না। ফলে পরিবেশের যে ক্ষতি হয়, সেটি কোনোভাবেই পূরণ হয় না।

লেখক : অধ্যাপক, পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা