kalerkantho

শনিবার । ২৭ চৈত্র ১৪২৭। ১০ এপ্রিল ২০২১। ২৬ শাবান ১৪৪২

অপহরণ মামলায় আটজনের ১০ বছর করে জেল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর বংশালে ইমরান নামের একজনকে অপহরণের পর তিন কোটি টাকা মুক্তিপণ দাবির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আটজনকে ১০ বছর করে কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল সোমবার ঢাকার সপ্তম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ তেহসিন ইফতেখারের আদালত এই রায় ঘোষণা করেছেন। একই সঙ্গে দোষী সাব্যস্ত না হওয়ায় সাজ্জাদ হোসেন নামে একজনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

আদেশে বলা হয়, দণ্ডবিধির ৩৬৪ ধারায় আট আসামিকে দোষী সাব্যস্ত করে ১০ বছর এবং ৩৮৫ ধারায় পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তবে দুটি সাজা একসঙ্গে চলবে। কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—জুয়েল মিয়া, বাপ্পি, তানজিদ শিকদার ওরফে প্রান্ত, সাঈদ হোসেন ওরফে রনি, আব্দুল্লাহ রাহিম ওরফে সবুজ, নুরুল ইসলাম ওরফে রবিন, ইমরান হোসেন ও গোলাম হোসেন ওরফে রাকিব।

কারাগারে আটক আসামি সাঈদ হোসেন ওরফে রনিকে গতকাল আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তাঁর উপস্থিতিতে বিচারক রায় পড়া শুরু করেন। রায় পড়া শেষে বিচারক ওই রায় ঘোষণা করেন। এ ছাড়া দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারে পরোয়ানা জারি করা হয়। এর আগে গত ১৮ জানুয়ারি যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে আদালত রায়ের জন্য এই দিন ধার্য করেন। এ সময় আসামি রনির বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানা জারি করে কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার অভিযোগে জানা যায়, ইমরান হোসেন ২০১৫ সালের ২ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে ফুলগাছ লাগানোর জন্য মাটি আনতে গিয়ে নিখোঁজ হন। এরপর রাতে ইমরানের পরিবারের একজনকে ফোন দিয়ে তিন কোটি টাকা মুক্তিপণ চাওয়া হয়। পরে পরিবার ৮০ লাখ টাকা দিতে রাজি হয়। এরপর অপহরণকারীরা আসলামকে জিঞ্জিরা ফেরিঘাটে নৌকার মধ্যে টাকা রেখে আসতে বলে। অপহরণকারী রনি সেখান থেকে টাকা নিতে এলে র‌্যাব তাঁকে আটক করে।

মন্তব্য