kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৩ রজব ১৪৪২

৪০ হাজার দক্ষ চালক তৈরির প্রকল্প আসছে

একনেক সভায় তোলা হচ্ছে ডিপিপি

তামজিদ হাসান তুরাগ   

২১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৪০ হাজার দক্ষ চালক তৈরির প্রকল্প আসছে

নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করার জন্য দক্ষ চালক তৈরি করতে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় একটি প্রকল্প প্রস্তাব করেছে। প্রকল্পটি যদি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) অনুমোদন করে তাহলে আগামী তিন বছরে ৪০ হাজার দক্ষ চালক তৈরি করবে তারা।

সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী মঙ্গলবার প্রকল্প প্রস্তাব একনেকে উঠবে বলে পরিকল্পনা কমিশন জানিয়েছে। কমিশন আরো জানিয়েছে, ‘যানবাহন চালনা প্রশিক্ষণ’ নামের এই প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ১০৫ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। বাস্তবায়ন করবে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর।

প্রকল্প প্রস্তাবে বলা হয়েছে, দক্ষ চালক তৈরির এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে দেশে-বিদেশে কর্মসংস্থানের পাশাপাশি যুবকদের আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে। এতে দারিদ্র্য বিমোচনের পাশাপাশি টেকসই জীবিকা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি সড়ক দুর্ঘটনাও উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

বিআরটিএর হিসাব অনুযায়ী, সারা দেশে মোটরসাইকেল বাদে নিবন্ধিত যানবাহন আছে ১৫ লাখ ৯ হাজার ৬০৪টি। বাস, ট্রাক, প্রাইভেট কার ইত্যাদির বিপরীতে ড্রাইভিং লাইসেন্স রয়েছে সাত লাখ ১২ হাজার ৩৩৬ জনের। বাকি সাত লাখ ৯৭ হাজার ২৬৮টি নিবন্ধিত যানবাহন চলছে অদক্ষ লাইসেন্সবিহীন চালক দিয়ে।

২০১৮ সালে রাজধানীর কুর্মিটোলায় বাসের চাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর নিরাপদ সড়ক আন্দোলন গড়ে ওঠে। এর পরিপ্রেক্ষিতে নতুন সড়ক আইন প্রণয়নসহ নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ‘যানবাহন চালনা প্রশিক্ষণ’ প্রকল্পটি প্রস্তাব পাওয়ার পর গত বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় দেওয়া সুপারিশের ভিত্তিতে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পুনর্গঠন করা হয়। একনেকের অনুমোদন পেলে ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

পরিকল্পনা কমিশনে প্রকল্পটি নিয়ে কাজ করছিলেন কমিশনের আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো বিভাগের আবুল কালাম আজাদ। তিনি সম্প্রতি অবসরে গেছেন। কালের কণ্ঠকে তিনি এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

‘যানবাহন চালনা প্রশিক্ষণ’ প্রকল্প প্রস্তাবে বলা হয়েছে, দেশে প্রতিবছর লাখ লাখ যানবাহন চলমান যানবাহনের বহরে যুক্ত হলেও এসব যানবাহন চালনার জন্য দেশে দক্ষ গাড়িচালক তৈরির জন্য সরকারি পর্যায়ে কোনো প্রশিক্ষণকেন্দ্র নেই। বেসরকারি পর্যায়ে ও ব্যক্তি উদ্যোগে কিছু প্রতিষ্ঠান আধাদক্ষ ও অদক্ষ গাড়িচালক তৈরি করছে। তাদের মাধ্যমে যানবাহন রাস্তায় চলাচলের ফলে মারাত্মক ও মর্মান্তিক দুর্ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছে।

প্রকল্প প্রস্তাবে আরো বলা হয়েছে, ইউনাইটেড নেশনস ডিকেড অব অ্যাকশন ফর রোড সেফটি ২০১১-২০ এবং জাতিসংঘঘোষিত টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ অনুযায়ী বাংলাদেশ ২০২০ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ও নিহতের সংখ্যা অর্ধেকে নামিয়ে আনতে অঙ্গীকারবদ্ধ। দেশে সড়ক অবকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি প্রশিক্ষিত ও দক্ষ গাড়িচালক তৈরির জন্য কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া জরুরি হওয়ায় ২০১৯ সালের ১৭ এপ্রিল সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণকেন্দ্রগুলোতে ড্রাইভিং ট্রেড কোর্স চালুর সুপারিশ করা হয়।

যুব মন্ত্রণালয়ের এই প্রকল্পের মূল কার্যক্রমের আওতায় ৪০ হাজার যুবককে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। কেনা হবে ৮০টি যানবাহন ও ৪৩টি কম্পিউটার। এর বাইরে ৪০৫টি অফিস সরঞ্জাম ও চার হাজার ৭০৮টি আসবাব এবং প্রশিক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কেনা হবে।

২০১৯ সালের শেষের দিকে ব্র্যাক পরিচালিত এক জরিপে দেখা যায়, দেশে প্রায় ৩৮০টি ড্রাইভিং ট্রেনিং স্কুলে যানবাহন চালনা প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এসব স্কুলের বেশির ভাগই সঠিক ও আদর্শ কারিকুলাম অনুসরণ করে না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা