kalerkantho

রবিবার। ২২ ফাল্গুন ১৪২৭। ৭ মার্চ ২০২১। ২২ রজব ১৪৪২

দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার তরুণী

পুরোহিতের স্ত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা

লালমনিরহাট ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১৫ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লালমনিরহাট সদর উপজেলার তিস্তা সেতু টোল প্লাজা এলাকায় এক তরুণীকে (১৮) দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলের এ ঘটনায় তাত্ক্ষণিকভাবে দুই অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ। একই দিন দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকায় এক পুরোহিতের স্ত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

লালমনিরহাটে আটককৃতরা হলেন কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙ্গা গ্রামের ত্রিপদ রায়ের ছেলে নির্মল এবং লালমনিরহাট সদর উপজেলার গোকুণ্ডা ইউনিয়নের আফজালনগরের তৈয়ব আলীর ছেলে আতিকুল ইসলাম। পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানায়, রাজারহাট উপজেলার এক তরুণীকে কৌশলে লালমনিরহাট-রংপুর মহাসড়কের তিস্তা সেতু এলাকায় নিয়ে আসেন নির্মল। এরপর এলাকাটির রিপনের গোডাউনে তরুণীকে নিয়ে রিপন, নির্মল ও আতিকুল ধর্ষণ করেন। পরে মেয়েটি কৌশলে সেখান থেকে ছুটে গিয়ে সেতুর টোল প্লাজায় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের বিষয়টি জানান। ঘটনা শুনে এসআই নুর আলম গোডাউনটিতে অভিযান চালিয়ে নির্মলকে আটক করেন। তাঁর তথ্যের ভিত্তিতে পরে আটক করা হয় আতিকুলকে, তবে রিপন পালিয়ে যান।

লালমনিরহাট সদর থানার ওসি শাহ আলম বলেন, মেয়েটি দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণ মিলেছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত কালু দাস পৌর এলাকার পূর্ব পাইকপাড়ার সুবোধ দাসের ছেলে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এক পুরোহিত স্ত্রী-সন্তান নিয়ে ভাড়া বাসায় থাকেন। বাসাটির ছাদে প্রায়ই মাদক সেবন করতে আসেন কালু দাস। গতকাল দুপুরে পুরোহিতের স্ত্রী কাপড় শুকানোর জন্য ছাদে গেলে সেখানে থাকা কালু তাঁকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। ধস্তাধস্তি করে পালিয়ে এসে চিৎকার শুরু করেন ওই নারী। এরই মধ্যে কালু পালিয়ে যান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ১ নম্বর ফাঁড়ির পরিদর্শক হাসান খান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য