kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৭ মাঘ ১৪২৭। ২১ জানুয়ারি ২০২১। ৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ছয় মাস আটকে রেখে নির্যাতন ধর্ষণ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাগেরহাটের মোংলার এক স্কুলছাত্রীকে শরণখোলায় নিয়ে একটি বাড়িতে প্রায় ছয় মাস আটকে রেখে যৌনকর্মে বাধ্য করা ও ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গত মঙ্গলবার থানায় মামলা দায়েরের পর চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। কুড়িগ্রামের রৌমারীতে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে এবার ভাড়া বাসা থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বাসাটির মালিকের বিরুদ্ধে। বগুড়ার শিবগঞ্জে ষষ্ঠ শ্রেণির স্কুলছাত্রীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগে এক তরুণের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। জামালপুর সদর উপজেলায় শিশু (৭) ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবককে আটক করে পিটুনির পর পুলিশে দিয়েছে গ্রামবাসী।

মোংলায় আসামিরা হলেন শারমিন বেগম (৩০), শিউলি বেগম (৪৫), পারভিন বেগম (৩৫), শিল্পী বেগম (৩৬), আলী হোসেন (৩৮), দেলো পাটোয়ারী (৩০) ও তায়েবা বেগম (৩০)। এর মধ্যে ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে দেলো আর যৌনকর্মে বাধ্য করার অভিযোগে কিশোরীর আত্মীয় শারমিন, শিউলি ও শিল্পী গ্রেপ্তার হয়েছেন। আলী ও তায়েবা পলাতক।

রৌমারীতে ভাড়া বাসায় গত শুক্রবার রাতে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এক গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন বাসার মালিক আজাহার আলী (৪৫)। শিবগঞ্জ উপজেলায় ৯ জানুয়ারি সকালের ঘটনায় সোমবার রাতে স্কুলছাত্রীর বাবা থানায় মামলা করেন। আসামির (১৬) বাড়ি উপজেলার মোকামতলা ইউনিয়নের চকপাড়া সরকারপাড়া গ্রামে। সে দশম শ্রেণির ছাত্র। জামালপুরের ঘোড়াধাপ ইউনিয়নের বন্দচিথলিয়া গ্রামে গতকাল দুপুরে আটক হওয়া যুবকের নাম ফরহাদ হোসেন (২৮)। তিনি স্থানীয় আব্দুল হামিদের ছেলে। গুরুতর অসুস্থ শিশুটিকে জামালপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

[প্রতিবেদনটি তৈরিতে তথ্য দিয়েছেন কালের কণ্ঠ’র সংশ্লিষ্ট এলাকার নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা