kalerkantho

রবিবার। ৩ মাঘ ১৪২৭। ১৭ জানুয়ারি ২০২১। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

মামলা না নেওয়ায় স্বামী শহীদ মিনারে

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৯ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় স্ত্রীকে বারবার ধর্ষণচেষ্টা ও নির্যাতনের বিচার না পেয়ে শহীদ মিনারে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মানববন্ধন করেছেন এক দিনমজুর স্বামী। এ সময় তিনি (স্বামী), তাঁর বৃদ্ধ মা, স্ত্রী ও দুই শিশুসন্তান কান্নায় ভেঙে পড়েন। গতকাল শনিবার দুপুরে সুনামগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নির্যাতনে অভিযুক্ত ব্যক্তি ও সহযোগী পুলিশ সদস্যের বিচার দাবি করে অসহায় পরিবারটি।

মানববন্ধন চলাকালে নির্যাতিত গৃহবধূর স্বামী জানান, তাঁর স্ত্রীকে শাল্লার আনন্দপুর গ্রামের মধু দাসের ছেলে প্রজেশ দাস অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে আসছেন। বাড়ি থেকে বের হলেই তাঁকে (গৃহবধূ) অশ্লীল কথা বলেন প্রজেশ। গত ১৮ নভেম্বর বিকেলে মদ খেয়ে গৃহবধূকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন তিনি। এ ঘটনায় গৃহবধূ শাল্লা থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। ২১ নভেম্বর রাতে গৃহবধূর ঘরে ঢুকে তাঁকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান প্রজেশ। এ সময় গৃহবধূ ও তাঁর শ্বশুর-শাশুড়ি চিৎকার করলে প্রজেশ পালিয়ে যান। এ ঘটনায় ২২ নভেম্বর থানায় লিখিত অভিযোগ দেন গৃহবধূ। এ ছাড়া ২০১৯ সালের ৩ ডিসেম্বর রাতে গৃহবধূকে তাঁর ঘরে ঢুকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান প্রজেশ।

ভুক্তভোগীর স্বামী বলেন, সর্বশেষ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ঘটনাস্থলে আসেন শাল্লা থানার এসআই সেলিম মিয়া। তিনি তদন্তে এসে তাঁকে (গৃহবধূর স্বামী) আপসের কথা বলেন। তবে তিনি আইনি বিচার চান। পরে তিনি মা-বাবা ও স্থানীয় ইউপি সদস্যকে নিয়ে থানায় যান। কিন্তু থানা মামলা নেয়নি। সেখানে ওসির সামনেই তাঁকে গালাগাল করেন এসআই সেলিম।

শাল্লা থানার ওসি নাজমুল হক বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। কোনো সত্যতা না পাওয়ায় মামলা নেওয়া হয়নি। তবে বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আরেকজন অফিসারকে দিয়ে তদন্ত করিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছিলাম। এর আগেই তিনি সুনামগঞ্জে গিয়ে মানববন্ধন করেছেন।’

মন্তব্য