kalerkantho

রবিবার। ৩ মাঘ ১৪২৭। ১৭ জানুয়ারি ২০২১। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বাসা ভাড়া করে দেওয়ার কথা বলে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

শিশুসহ আরো চারজনকে নিপীড়নের অভিযোগ, গ্রেপ্তার ৫
সন্তান প্রসব করল নির্যাতিত কিশোরী

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৯ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাসা ভাড়া করে দেওয়ার কথা বলে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

ময়মনসিংহের ভালুকায় বাসা ভাড়া করে দেওয়ার কথা বলে এক পোশাককর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী, বরিশালের আগৈলঝাড়া ও ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় তিন শিশু-কিশোরী এবং বগুড়ার শেরপুরে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বগুড়ার ধুনটে সন্তান জন্ম দিয়েছে ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা এক বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী তরুণী।

ভালুকায় গত বৃহস্পতিবার বিকেলের ঘটনায় শুক্রবার রাতে ভালুকা মডেল থানায় মামলা করেছেন নির্যাতিত নারী। আসামিরা হলেন উপজেলার ডাকাতিয়া ইউনিয়নের ডাকাতিয়া দক্ষিণপাড়ার জহেদ আলীর ছেলে অটোচালক মো. সবুজ মিয়া (২৩) ও পাশের আংগারগাড়া গ্রামের আহাম্মদ আলীর ছেলে মো. এনামূল হক (২৯)। মামলার পরই অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গতকাল শনিবার তাঁদের আদালতে এবং ভুক্তভোগীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগীর বাড়ি ভালুকা উপজেলায়। তিনি ভালুকা পৌর এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে গাজীপুরের শ্রীপুরে পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। দূরের কারখানায় যাতায়াতে তাঁর সমস্যার কথা জানতে পেরে পূর্বপরিচিত সবুজ মিয়া তাঁকে জানান, তিনি ভুক্তভোগীর কারখানা এলাকার পাশের জৈনাবাজারে চাকরি করেছেন। সেখানে তিনি তাঁকে (ভুক্তভোগী) বাসা ভাড়া নিয়ে দিতে পারবেন। সবুজের কথায় তিনি বাসা ভাড়া নিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে সবুজের মোটরসাইকেলে করে ভালুকা থেকে জৈনাবাজার এলাকায় যাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক ছেড়ে ভালুকার মল্লিকবাড়ি মোড় হয়ে পশ্চিম দিকে রওনা হন সবুজ। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে সবুজ ভুক্তভোগীকে জানান, ভেতরের রাস্তা দিয়ে জৈনাবাজার পৌঁছাবেন। কিন্তু জৈনাবাজারে না গিয়ে ভুক্তভোগীকে ভালুকার আংগারগাড়া গ্রামের একটি কলাবাগানে নিয়ে যান তিনি। সেখানে আগে থেকেই অপেক্ষা করছিলেন এনামূল হক। পরে তাঁরা ভুক্তভোগীকে ধর্ষণ করেন। তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়লে তাঁকে সেখানে ফেলে চলে যান তাঁরা।

বগুড়ার শেরপুর উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নে বৃহস্পতিবার রাতে এক গৃহবধূ প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরে বের হলে তাঁকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পাশের বাড়ি নিয়ে ধর্ষণ করা হয়েছে। এই অভিযোগে গতকাল শেরপুর থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগী। আসামি সাইফুল ইসলাম (৪৫) গাড়ীদহের মহিপুরের আফছার আলীর ছেলে। তাঁকে ধরতে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার সোনাহাট ইউনিয়নে এক শিশুকে (৫) নারকেল দেওয়ার কথা বলে নিজ বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে হাবিবুর রহমান (৩৫) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। বুধবার বিকেলের এই ঘটনায় অভিযুক্ত হাবিবুর সোনাহাটের চরবলদিয়া (ফকিরপাড়া) গ্রামের মৃত সায়েদ আলীর ছেলে ও দুই সন্তানের জনক। গতকাল তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এই ঘটনায় ভূরুঙ্গামারী থানায় শিশু ও নারী নির্যতন দমন আইনে মামলা করেন শিশুটির বাবা।

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় গত ২০ নভেম্বর রাতে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। গত শুক্রবার রাতে কিশোরীর বাবা আগৈলঝাড়া থানায় মামলাটি করেন। অভিযুক্ত ছাব্বির হোসেন মোল্লাকে রাতেই পুলিশ গ্রেপ্তারের পর গতকাল জেলহাজতে পাঠিয়েছেন বরিশাল আদালত। ছাব্বির উপজেলার মধ্য শিহিপাশা গ্রামের আব্দুল খালেক মোল্লার ছেলে।

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলায় গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে তাদের বাড়িতে ঢুকে ধর্ষণের অভিযোগে হারুন শেখ নামের যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল ভোরে পাশের বোয়ালমারী থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি আলফাডাঙ্গার বুড়াইচ ইউনিয়নের পাকুড়িয়া গ্রামের কামাল শেখের ছেলে। ঘটনার সময় তিনি মোবাইল ফোনে অশ্লীল ছবি ধারণ করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাড়ার ভয়ও দেখান ওই ছাত্রীকে।

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় ভুক্তভোগী বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী তরুণী (১৬) তার বাবার বাড়িতে গত শুক্রবার বিকেলে সন্তান প্রসব করে। গত ২৫ জানুয়ারি এই ধর্ষণে অভিযুক্ত তরুণের (১৬) বাড়ি উপজেলার চৌকিবাড়ি গ্রামে।

[প্রতিবেদনটি তৈরিতে তথ্য দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার কালের কণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা]

মন্তব্য