kalerkantho

শুক্রবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৭ নভেম্বর ২০২০। ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

তিন হাসপাতালে অভিযান

ম্যাট্রিক পাস ওটি বয় করছে অপারেশন!

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর মোহাম্মদপুরে তিনটি বেসরকারি হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে ম্যাট্রিক পাস ওটি বয় দিয়ে অপারেশনসহ বিভিন্ন অনিয়মের দায়ে ছয়জনকে কারাদণ্ড দিয়েছেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। গত বুধবার রাত ১০টা থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর ৪টা পর্যন্ত মক্কা মদিনা জেনারেল হাসপাতাল, নূরজাহান অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও ক্রিসেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডে এই অভিযান চালানো হয়। সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে মক্কা মদিনা ও নূরজাহান অর্থোপেডিক হাসপাতাল।

র‌্যাব-২ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহযোগিতায় অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু বলেন, ‘হাসপাতালগুলোর পরিবেশ অত্যন্ত নোংরা এবং সেখানে সাধারণ রোগীও অসুস্থ হয়ে পড়বে। এসব হাসপাতালে কোনো চিকিৎসক নেই। মালিক ও ওয়ার্ড বয় মিলে পঙ্গু হাসপাতাল থেকে ভাগিয়ে আনা রোগীদের ভয়ভীতি দেখিয়ে অপারেশন করে।’

তিনি জানান, এসব অপরাধের জন্য মক্কা মদিনা জেনারেল হাসপাতালের মালিক নূরুন নবীকে এক বছর, ওটি বয় আনোয়ার হোসেনকে ছয় মাস ও আবদুর রশীদকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া নূরজাহান অর্থোপেডিক হাসপাতালের ওটি বয় জাহাঙ্গীর হোসেনকে দুই ও বাবুল হোসেনকে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ক্রিসেন্ট হাসপাতালের মালিক আবুল হোসেনকে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, অভিযানে দেখা গেছে, হাসপাতালগুলোয় ওটি বয় দিয়ে অস্ত্রোপচার করানো হচ্ছে। একজন ম্যাট্রিক পাস ছেলে, যার চিকিৎসা সম্পর্কে ন্যূনতম লেখাপড়া নেই, সেই লোক নিচ্ছে অপারেশনের সিদ্ধান্ত এবং নিজে অপারেশন করছে। এতে রোগীর জীবন ঝুঁকিতে পড়ছে। সেই সঙ্গে অর্থ ও সময়ের অপচয় হচ্ছে।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয় জানিয়ে পলাশ কুমার বসু বলেন, ‘পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা সাধারণ রোগীদের একটি দালালচক্র ভাগিয়ে এসব হাসপাতালে নিয়ে আসে। মোটা অঙ্কের কমিশনের ভিত্তিতে দালালরা এসব কাজ করে। উপযুক্ত চিকিৎসা না পেলেও রোগীদের মোটা অঙ্কের বিল ধরিয়ে দেওয়া হয়। বিল পরিশোধ করতে না পারলে রোগীদের আটকে রাখার অভিযোগও রয়েছে এসব হাসপাতালের বিরুদ্ধে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা