kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

মিয়ানমারকে তাগিদ দিয়েছে জাপান

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২৬ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনে জাপান মিয়ানমারকে তাগিদ দিয়েছে। জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তোশিমিতো মোতেগি গত আগস্ট মাসের দ্বিতীয়ার্ধে মিয়ানমার সফরকালে ওই তাগিদ দেন। বাংলাদেশে জাপানের রাষ্ট্রদূত নাওকি ইতো গতকাল রবিবার ঢাকায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে এ কথা জানান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাপানের জোরালো সহযোগিতা চেয়েছেন। তিনি এই অঞ্চলের শান্তি, স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ওপর জোর দেন। বাংলাদেশে আশ্রিত ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে রাখাইন রাজ্যে তাদের আদি বাসভূমিতে দ্রুত, নিরাপদ, টেকসই ও সম্মানজনক প্রত্যাবাসনের অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টিতে তিনি জাপানকে মিয়ানমারের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক কাজে লাগানোর আহ্বান জানান।

জাপানের রাষ্ট্রদূত এ ক্ষেত্রে তাঁর দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মিয়ানমার সফর এবং মিয়ানমারের প্রতি তাঁদের আহ্বানের কথা উল্লেখ করেন। গত ২২ অক্টোবর রোহিঙ্গার জন্য টেকসই সহযোগিতাবিষয়ক সম্মেলনে প্রত্যাবাসন ইস্যুতে জাপান তার অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছে বলে রাষ্ট্রদূত জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাপানের উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার ও গাজীপুরে দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। রাষ্ট্রদূত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লেখা জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদি সুগার চিঠিতে বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরো জোরদারের আগ্রহের কথা উল্লেখ করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও জাপানের রাষ্ট্রদূত ২০২২ সালে দ্বিপক্ষীয় কূটনৈতিক সম্পর্কের রজত জয়ন্তী উদযাপনে সম্মত হন।

এদিকে ইসলামী সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) নেতৃস্থানীয় দেশ হিসেবে আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালতে (ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস, সংক্ষেপে আইসিজে) রোহিঙ্গা বিষয়ে গাম্বিয়াকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে মিসরের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বাংলাদেশে মিসরের বিদায়ি রাষ্ট্রদূত ওয়ালিদ আহমেদ সামসেলদিন গতকাল রবিবার ঢাকায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায়  বিদায়ি সাক্ষাৎ করতে এলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁকে ওই আহ্বান জানান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে মিসরের সমর্থন অব্যাহত থাকবে বলে সে দেশের রাষ্ট্রদূত নিশ্চিত করেছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বাংলাদেশ ও মিসরের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক সহযোগিতা বাড়ানো এবং এ ক্ষেত্রে দুই দেশের সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি মিসরকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। এ ছাড়া তথ্য-প্রযুক্তিতে দক্ষ বাংলাদেশিদের মিসর কাজে লাগাতে পারবে বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

ড. মোমেন মিসরকে বাংলাদেশে পেট্রো-কেমিক্যাল শিল্প স্থাপনের অনুরোধ করেন। এ বিষয়ে মিসর আগ্রহী বলে জানান রাষ্ট্রদূত।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা