kalerkantho

সোমবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩০ নভেম্বর ২০২০। ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

পাটকল রক্ষার আন্দোলন

খুলনায় ২৫০ জনের নামে পুলিশের মামলা

খুলনা অফিস   

২১ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খুলনায় পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের কর্মসূচিতে সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা হয়েছে। তাতে সিপিবি কেন্দ্রীয় নেতা এস এম রশিদ ও বাসদ নেতা জনার্দন দত্ত নান্টুসহ আসামি করা হয়েছে ২৫০ জনকে।

গাড়ি ভাঙচুর ও পুলিশের কাজে বাধার অভিযোগে নগরীর খানজাহান আলী থানায় এসআই মেহেদী হাসান বাদী হয়ে এই মামলা করেন।

মামলার অন্য আসামিদের মধ্যে আছেন জেজেআই জুট মিলের সাবেক সিবিএ সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন খান, গণসংহতি আন্দোলনের ফুলতলা উপজেলা আহ্বায়ক অলিয়ার রহমান, মহানগর সিপিবির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, শ্রমিক রবিউল ইসলাম, শেখ রবিউল ইসলাম ওরফে রবি, শামসের আলম, ছাত্র ফেডারেশনের খুলনা মহানগরের আহ্বায়ক আল আমিন শেখ, শ্রমিক নওশের আলী, ফারুক হোসেন, জাহাঙ্গীর সরদার, শহিদুল ইসলাম ও আবুল হোসেন। এর মধ্যে মোজাম্মেল হোসেন খান পলাতক রয়েছেন।

খানজাহান আলী থানার ওসি প্রবীর কুমার বিশ্বাস জানান, অভিযুক্তরা জনগণের জানমালের ক্ষতি এবং রাষ্ট্রীয় কাজে বাধা প্রদান করে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করেছেন। এই মামলায় ১৩ জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে গতকাল আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

গত সোমবার সকালে নগরীর ইস্টার্ন গেট এলাকায় পুলিশের সঙ্গে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের সংঘর্ষ হয়। তাতে আহত হয় অন্তত ২০ জন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট কুদরত-ই-খুদাসহ ১৪ জনকে আটক করে। পরে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এদিকে মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে সম্মিলিত নাগরিক পরিষদ। সংগঠনের নেতারা বলেছেন, বিনা উসকানিতে নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশ হামলা চালিয়েছে। আবার ২৫০ শ্রমিকের নামে মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। মিছিলে নাগরিক নেতা মুক্তিযোদ্ধা আ ফ ব মহসিন, সিপিবি জেলা সভাপতি ডা. মনোজ দাশ, নগর সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট বাবুল হাওলাদার, মোস্তফা খালিদ খসরু, মুনির চৌধুরী সোহেল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা