kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

এনআইডি নিয়ে অনিয়মে চাকরি হারালেন দুজন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অবৈধভাবে ভোটার করার চেষ্টার অভিযোগে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা ও সদর উপজেলার দুজন ডাটা এন্ট্রি অপারেটরকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি তাঁদের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলা ও অনিয়মের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। তাঁরা হচ্ছেন আদিতমারী উপজেলা নির্বাচন অফিসের মো. জুয়েল বাবু ও সদর থানা নির্বাচন অফিসের এস এম আজম শাহী। নির্বাচন কমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ৪ অক্টোবর বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের আইডেন্টিফিকেশন সিস্টেম ফর এনহ্যান্সিং অ্যাকসেস টু সার্ভিসেস প্রকল্পের উপপ্রকল্প পরিচালক স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত সাপেক্ষে তাঁদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এ ছাড়া দায়িত্বে অবহেলা ও অনিয়মের মাধ্যমে ভোটার করায় দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দেন প্রকল্প পরিচালক। এই নির্দেশের পর  গত ১১ অক্টোবর রবিবার রাতে তাঁদের বিরুদ্ধে লালমনিরহাট সদর থানায় মামলা দায়ের করেন সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. আজাদুল হেলাল।

মামলার বিবরণে বলা হয়, লালমনিরহাট অফিসে কর্মরত ডাটা এন্ট্রি অপারেটর মো. জুয়েল বাবু বিনা অনুমতিতে ছুটির দিনে লালমনিরহাট সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসে এসে সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসের আরেক ডাটা এন্ট্রি অপারেটর এস এম আজম শাহীর সঙ্গে যোগসাজশে অনিবাসী/ঠিকানাবিহীন ব্যক্তিকে অবধৈভাবে ভোটার করার চেষ্টা করেন।

আর্থিক প্রলোভনে পড়ে তাঁরা গোপনে ভোটারদের ডেকে এনে নিবন্ধন করেছেন বলে সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসারের কাছে স্বীকার করেন। পরে এক অফিস আদেশে ওই দুই ডাটা এন্ট্রি অপারেটরের কাছে তাঁদের ওই কর্মকাণ্ডের উপযুক্ত ব্যাখ্যা ও জবাব চাওয়া হয়। ব্যাখ্যা আইনসংগত না হাওয়ায় তাঁদের বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা