kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বিশেষ আদালতে বিচার দাবি

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের প্রতিবাদে দ্বিতীয় দিনেও রাজপথে সোচ্চার সারা দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



বিশেষ আদালতে ধর্ষক-নিপীড়কদের বিচার করতে হবে, নিশ্চিত করতে হবে দ্রুত শাস্তি। তাদের মদদদাতাদের চিহ্নিত করতে হবে। কোনো রাজনৈতিক শক্তি যাতে তাদের রক্ষা করতে না পারে, খেয়াল রাখতে হবে সেদিকেও। গতকাল মঙ্গলবার সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ধর্ষণবিরোধী প্রতিবাদী সমাবেশ থেকে এসব দাবি তোলা হয়েছে। একই সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশকে ধর্ষক-নিপীড়কদের হাতে ছেড়ে দেওয়া হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় এই সমাবেশ থেকে।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আয়োজিত এই সমাবেশ থেকে উচ্চারিত এসব দাবি ও হুঁশিয়ারিই মূলত প্রতিধ্বনিত হয়েছে রাজধানী ঢাকার অন্যান্য স্থানে ছাত্র-জনতার ধর্ষণবিরোধী প্রতিবাদ-বিক্ষোভসহ সারা দেশের মানববন্ধন, সড়ক অবরোধ, প্রতিবাদী চিত্রাঙ্কন ও অবস্থান কর্মসূচিতে। গতকাল দ্বিতীয় দিনের মতো রাজপথে নেমে সারা দেশের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের পাশাপাশি নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার দাবি জানায়, ধর্ষণ-নিপীড়কদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায়। নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনসহ সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ও সারা দেশে একের পর ঘটে চলা ধর্ষণকাণ্ড ও নারী নির্যাতনের ঘটনায় দেশজুড়ে চলমান প্রতিবাদে শামিল হয়েছে সারা দেশ।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সমাবেশে সংগঠনটির সাবেক সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছরে এসে এই ঘটনা পাকিস্তানিদের নির্যাতনের কথা মনে করিয়ে দেয়। তিনি বলেন, পাকিস্তানি হানাদারদের নির্মূল করেছি; একইভাবে ধর্ষকদের নির্মূল করতে হবে।

স্বাগত বক্তব্যে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফ বলেন, ‘আমরা এখন ভয়ের সমাজে বাস করছি। মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশে এটা কাঙ্ক্ষিত নয়।’

সংগঠনের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক, গণশিল্পী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ফকির আলমগীর, পথনাটক পরিষদের সভাপতি মান্নান হীরা, অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাস প্রমুখ।

আগামী শনিবার দেশব্যাপী প্রতিবাদ সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট। ওই দিন বিকেল ৪টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আবারও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

সারা দেশে নারী ও শিশু নির্যাতনের প্রতিবাদে      তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে নারী ও শিশু অধিকার ফোরামও। গতকাল বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের আহ্বায়ক ও দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৮ অক্টোবর সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের সড়কে অবস্থান কর্মসূচি, ১০ অক্টোবর সারা দেশে জেলায় জেলায় মানববন্ধন এবং ১১ অক্টোবর ঢাকাসহ সারা দেশে জেলা আদালত প্রাঙ্গণে সমাবেশ ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি পেশ।

সারা দেশে অব্যাহত নারী ধর্ষণ-নির্যাতন বন্ধ এবং পাটকল চালুর দাবিতে আগামী ১৯ অক্টোবর সারা দেশে রাজপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করবে বাম গণতান্ত্রিক জোট। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বাম জোটের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক বজলুর রশীদ ফিরোজ।

নারীর প্রতি সহিংসতা ও ধর্ষণ বন্ধ এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে গতকাল মানববন্ধন করেছে যুব মহিলা লীগ। রাজধানীর মিরপুর রোডে এ মানববন্ধনে যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তারের নেতৃত্বে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল, সহসভাপতি ও সংসদ সদস্য আদিবা আনজুম মিতা প্রমুখ অংশ নেন।

গতকাল রাজপথে নামে নীলফামারীর জেলা ছাত্রসমাজ। মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে ধর্ষক-নিপীড়কদের দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানানো হয়।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বৃষ্টি উপেক্ষা করে রংপুর প্রেস ক্লাবের সামনে ছাত্র-জনতা ও সর্বস্তরের সাধারণ শিক্ষার্থীর ব্যানারে পৃথক প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হয়। একই দাবিতে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে বহ্নিশিখা ও গ্রিন ভয়েসসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

দ্রুত বিচারের আওতায় এনে ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে রাজশাহীর শিক্ষার্থীরা। নগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্ট এলাকায় মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি থেকে তারা এ দাবি জানায়।

ধর্ষকদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে নওগাঁর পত্নীতলার নজিপুর চারমাথা মোড়ে।

মানববন্ধন ও মোমবাতি প্রজ্বালন করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

নারী-শিশু নির্যাতন, ধর্ষণ ও যৌন সহিংসতার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি দিয়েছে সামাজিক সংগঠন স্মার্ট বাইকার। জেলার ফুলবাড়িয়ায় সাধারণ ছাত্ররা মুখে কালো কাপড় বেঁধে ফেস্টুন হাতে নিয়ে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন করে।

একই কর্মসূচি পালন করেছেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সুনামগঞ্জে সামাজিক প্রতিরোধ কমিটি মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট হবিগঞ্জ জেলা শাখা মানববন্ধন করেছে। নরসিংদীতে প্রতিবাদী মিছিল ও মানববন্ধন হয়েছে আমরা তরুণজোটের ব্যানারে।

‘এই সময়ে যে দর্শক সেও ধর্ষক’, ‘তুমিও দায়ী কারণ তুমি নীরব’—এমন সব স্লোগান লেখা ফেস্টুন নিয়ে ধর্ষণের প্রতিবাদে যশোরে রাজপথে দাঁড়িয়েছিলেন মাসুম রহমান ও সাকিয়া জাফরিন দম্পতি। তাঁদের দুজনের এই প্রতিবাদ দেখে বাহবা দেয় পথচারীরা। এ সময় তাঁদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে পাশে দাঁড়িয়ে পড়ে কয়েকজন পথচারী।

খুলনায় মানববন্ধন, প্রতিবাদী চিত্রাঙ্কন ও অবস্থানসহ নানা ধরনের কর্মসূচি পালন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরাসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। সাতক্ষীরা জেলা নাগরিক কমিটির আয়োজনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে।

ধর্ষণের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ার আহ্বান জানিয়ে ফরিদপুরে মানববন্ধন করেছেন ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীরা। বেসরকারি সংস্থা একতা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মানববন্ধন করা হয়েছে। জেলার ভাঙ্গায় বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের সদস্যরা প্রতিবাদ সভা করেছেন।

গোপালগঞ্জে সাধারণ শিক্ষার্থীর ব্যানারে এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আলাদাভাবে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছেন।

চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইয়ুথ অ্যাসেম্বলির উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে যোগ দেয় স্থানীয় অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

নড়াইলের লোহাগড়ায় পরিবেশবাদী সংগঠন বহ্নি শিখা ও গ্রিন ভয়েস জেলা শাখার আয়োজনে প্রতিবাদী মানববন্ধন থেকে ধর্ষকদের গ্রেপ্তার ও ফাঁসির দাবি জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, রাজবাড়ী হেল্পলাইন ও ছাত্র ইউনিয়ন জেলায় পৃথক প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে।

পিরোজপুরে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ জেলা শাখাসহ বিভিন্ন সংগঠনের পৃথক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বরিশালে পালন করা হয়েছে গণ-অবস্থান কর্মসূচি ও মানববন্ধন। সাধারণ শিক্ষার্থীদের আয়োজনে এই কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করে সামাজিক প্রতিরোধ কমিটি, নারী নির্যাতন প্রতিরোধ জোট ও ব্লাস্ট বরিশাল ইউনিট।

ধর্ষণসহ নারীর প্রতি সহিংসতা বৃদ্ধির নিন্দা জানানোসহ অপরাধীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্বদ্যািলয়ের বিএনপিপন্থী সাদা দলের শিক্ষকরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা