kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

খালাস চেয়ে মিন্নির আপিল হাইকোর্টে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খালাস চেয়ে মিন্নির আপিল হাইকোর্টে

বরগুনায় শাহনেওয়াজ রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তাঁর স্ত্রী মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি নিজেকে নির্দোষ দাবি করে নিম্ন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেছেন। আপিল আবেদনে ২১ যুক্তিতে খালাস চেয়েছেন তিনি।

মিন্নির পক্ষে অ্যাডভোকেট মাক্কিয়া ফাতেমা ইসলাম গতকাল মঙ্গলবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আপিল দাখিল করেন। এই আইনজীবী কালের কণ্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিচার শেষে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত গত ৩০ সেপ্টেম্বর রায় দেন। রায়ে রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ছয়জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। বাকি চার আসামিকে খালাস দেন আদালত। ৩ অক্টোবর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়। এর পরের দিন আসামিদের মৃত্যুদণ্ড অনুমোদনের জন্য হাইকোর্টে ডেথ রেফারেন্স পাঠানো হয়। এ অবস্থায় গতকাল বিকেলে নিম্ন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে ৪৫১ পৃষ্ঠার আপিল দাখিল করেন মিন্নির আইনজীবী।

গত ৩ অক্টোবর রায়ের কপি হাতে পান মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর। এর পরের দিন রায়ের কপি সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্নার হাতে তুলে দেন তিনি। রায়ের কপি পাওয়ার পর অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না আপিল আবেদন প্রস্তুত করেন।

আসামিদের ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে চলে আসায় এখন মামলাটির পেপারবুক তৈরির জন্য বিজি প্রেসে পাঠানো হবে। ডেথ রেফারেন্সসহ মামলার যাবতীয় নথিপত্র একত্র করে বাঁধাই করা হবে, যা পেপারবুক নামে পরিচিত। এই পেপারবুক ছাপা হয়ে হাইকোর্টে আসার পর প্রধান বিচারপতি মামলাটির বিচারের জন্য একটি বেঞ্চ গঠন করে দেবেন।

গত বছর ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের কাছে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে কুপিয়ে রিফাত শরীফকে হত্যা করে। এ ঘটনায় তাঁর বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে মামলা করেন। এই মামলায় প্রধান সাক্ষী করা হয় নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে, কিন্তু একপর্যায়ে দুলাল শরীফ পুত্রবধূকে অভিযুক্ত করে তাঁর গ্রেপ্তার দাবি করলে ঘটনা ভিন্ন দিকে মোড় নেয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা