kalerkantho

শনিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৮ নভেম্বর ২০২০। ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

নীলা হত্যা মামলা

মিজানুর সাত দিনের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মিজানুর সাত দিনের রিমান্ডে

সাভারে নীলা রায় নামে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় করা মামলার প্রধান আসামি মিজানুর রহমানকে সাত দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। গতকাল শনিবার ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাজীব হাসানের আদালত এই রিমান্ডের আদেশ দেন। একই আদালত রিমান্ড শেষে মিজানুরের সহযোগী সেলিমকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে মিজানুরকে আদালতে হাজির করা হয়। পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাভার থানার এসআই নির্মল চন্দ্র ঘোষ তাঁর ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিনের আবেদন খারিজ করে তাঁর সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। অন্যদিকে রিমান্ড শেষে মিজানুরের সহযোগী সেলিমকে আদালতে হাজির করা হয়। পরে তাঁকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করা হয়। আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এদিকে গতকাল ভোররাতে সাভার পৌরসভার উলাইল এলাকা থেকে মিজানুরসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ সময় তাঁদের কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তার হওয়া বাকি দুজন হলেন সাকিব ও জয়। 

গত ২৩ সেপ্টেম্বর মিজানুরের সহযোগী সেলিম পালোয়ানের দুই দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। এর আগে গত ২২ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে মানিকগঞ্জের আরিচাঘাট এলাকা থেকে ফেরি পারাপারের সময় সেলিমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গত শুক্রবার ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফাইরুজ তাসনীমের আদালত মিজানুরের বাবা আবদুর রহমান (৬০) ও মা নাজমুন নাহার সিদ্দিকার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গত ২৪ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার চারিগ্রাম থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। মামলার সূত্রে জানা যায়, গত ২০ সেপ্টেম্বর রাতে হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে নীলা রায় ও তার ভাই অলক রায়ের পথ রোধ করেন বখাটে মিজানুর রহমান। পরে ভাইয়ের কাছ থেকে নীলাকে ছিনিয়ে নিয়ে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান মিজানুর। রাতে সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নীলাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ হত্যাকাণ্ডের পরের দিন গত ২১ সেপ্টেম্বর নীলার বাবা নারায়ণ রায় বাদী হয়ে সাভার মডেল থানায় মামলা করেন। এতে প্রধান আসামি করা হয় মিজানুর রহমানকে। এ ছাড়া তাঁর বাবা আবদুর রহমান এবং মা নাজমুন নাহারসহ অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

সাভারে কিশোর গ্যাং ও মাদক ঠেকানোর উদ্যোগ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা