kalerkantho

মঙ্গলবার । ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৪ নভেম্বর ২০২০। ৮ রবিউস সানি ১৪৪২

জন্মবার্ষিকীতে সেমিনার

বিদ্যাসাগরের কাছে মানবতাই হলো শ্রেষ্ঠ ধর্ম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর আজও আমাদের কাছে সমান প্রাসঙ্গিক। তিনি বিশ্বাস করতেন, মানুষের মাঝে ঈশ্বর বাস করেন। এই ছিল তাঁর জীবনদর্শন। মানবতাই হলো বিদ্যাসাগরের কাছে শ্রেষ্ঠ ধর্ম। আজ আমরা নারীরা শিক্ষাক্ষেত্রে, সংস্কৃতিক্ষেত্রে যে ভূমিকা পালন করতে পারছি, তা বিদ্যাসাগরের জন্য। যখনই নারীদের সামাজিক অবস্থান ও শক্তিবৃদ্ধির ক্ষেত্রে কোনো সংগ্রাম দেখা যাবে, আমাদের বিদ্যাসাগরের অবদানকে স্বীকার করতেই হবে।’ এ কথা বলেছেন কলকাতার রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মহুয়া মুখোপাধ্যায়। ‘একুশ শতকের বাঙালি হৃদয়ে বিদ্যাসাগর’ শীর্ষক এক সেমিনারের মূল প্রবন্ধে তিনি এ কথা বলেন। সেমিনারে তিনি অনলাইনে যুক্ত হন।

বাঙালির কিংবদন্তি শিক্ষাবিদ ও সমাজ সংস্কারক পণ্ডিত ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের ২০০তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর এই সেমিনারের আয়োজন করে। জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরের এই সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ ঘোষ। সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান।

কে এম খালিদ বলেন, ‘বিদ্যাসাগর কর্মজীবনে ছিলেন তীব্র জেদি ও আত্মমর্যাদাসম্পন্ন। মাতৃভক্তি ছিল তাঁর চরিত্রের অন্যতম গুণ।’

মন্তব্য