kalerkantho

রবিবার । ৯ কার্তিক ১৪২৭। ২৫ অক্টোবর ২০২০। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বাজারে শীতের আগাম সবজি, তবু কমছে না দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাজধানীর বাজারে এরই মধ্যে শীতকালীন আগাম সবজির সরবরাহ শুরু হয়েছে। শিম, লাউ, ফুলকপি, টমেটো, বাঁধাকপি, মুলাশাক, লালশাকসহ প্রায় সব ধরনের শীতকালীন সবজিই মিলছে বাজারে। সঙ্গে রয়েছে আলু, পোটল, বেগুন এসব সবজিও। তার পরও সবজি বাজারের অস্বস্তি কাটছে না। কয়েক ধরনের সবজির দাম এক মাস আগের তুলনায় কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা কমলেও ফেরেনি স্বাভাবিক দামে। বাজারে পেঁপেসহ দু-একটি সবজি ছাড়া সবটির দাম কেজিপ্রতি ৬০ টাকার ওপরে। চলতি সপ্তাহে চাল, ডাল, তেল, পেঁয়াজসহ প্রায় সব ধরনের নিত্যপণ্যের দামও বেড়েছে। মাছ, মাংস, ডিমের বাজার আগে থেকেই চড়া। ফলে করোনাকালে আয় কমে যাওয়া মানুষ আরো বেশি বিপাকে পড়েছে। রাজধানীর মালিবাগ, মতিঝিল, গোপীবাগ, মানিকনগর, মুগদাসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া গেল।

গতকাল বৃহস্পতিবার গোপীবাগ বাজারে কথা হয় বেসরকারি একটি সংস্থায় কাজ করা জসীম উদ্দীনের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমার দুজনের সংসারে মাসে পাঁচ হাজার টাকা হলেই চলত। এখন চালসহ সব নিত্যপণ্যের দামই প্রতিদিন বাড়ছে। ফলে খাওয়াদাওয়ায় প্রতিদিন বাড়তি খরচ হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা। মাসে প্রায় হাজার টাকা। অন্যদিকে করোনার কারণে আমার বেতন কমেছে পাঁচ হাজার টাকা। সে হিসাবে মাসে আমার বাড়তি খরচ হচ্ছে ছয় হাজার টাকা।’ 

গতকাল রাজধানীর খুচরা বাজারে আগের সপ্তাহের মতোই আলুর কেজি বিক্রি হয়েছে ৪০ টাকায়। স্বাভাবিক সময়ে যা ২৫ টাকার মধ্যে থাকে। এ ছাড়া করলা, বেগুন, বরবটি, কাকরোল, মুলা বিক্রি হয়েছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি। শিম, টমেটো, গাজর, কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ১২০ টাকা কেজির ওপরে। বাজারে ৪০ থেকে ৫০ টাকার মধ্যে রয়েছে কচুর লতি, চিচিঙা, পোটল, ঢেঁড়স ও পেঁপে।

শাকের মধ্যে লালশাক, মুলাশাক, পাটশাকের আঁটি ২০ থেকে ২৫ টাকা। লাউয়ের পিস ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ফুল কপি ও বাঁধাকপি ৩০ থেকে ৪০ টাকা।

মুগদা বাজারের সবজি বিক্রেতা আনোয়ার বলেন, ‘সবজির বাজার এখন ছড়িয়ে-ছিটিয়ে গেছে। বন্যার কারণে এক জায়গায় সব সবজি পাওয়া যায় না। ফলে দামও বেশি। আবার বৃষ্টিতে সবজি পচে যায় বলে অনেকে দাম বেশি রাখে।’

সরবরাহ সমস্যার কারণে বেড়েছিল গরুর মাংসের দাম। এখন সরবরাহ সমস্যা না থাকলেও দাম নামেনি আগের অবস্থানে। রাজধানীর বাজারে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকা কেজি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা