kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সড়ক দুর্ঘটনা

জরুরি বিভাগে অচেতন গৃহবধূ বারান্দায় স্বামী-সন্তানের লাশ

পৃথক ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাসহ নিহত ৩
মোটরসাইকেলটি এক কিমি টেনে নিয়ে গেল বাস

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



জরুরি বিভাগে অচেতন গৃহবধূ বারান্দায় স্বামী-সন্তানের লাশ

ময়মনসিংহের নান্দাইলে মাইক্রোবাস ও পিকআপের সংঘর্ষে দুই পরিবারের ১৪ জন (পরস্পর আত্মীয়-স্বজন) গুরুতর আহত হন। তাঁদের নান্দাইল উপজেলা হাসপাতালে নেওয়া হলে শিক্ষক ফাহাদ আলম (৩২) ও তাঁর শিশুসন্তান তুরান (৫) মারা যায়। এ সময় হাসপাতালের জরুরি বিভাগে অন্য আহতদের মধ্যে অচেতন, আশঙ্কাজনক অবস্থায় ছিলেন শিশুটির মা রেবু আক্তার (২৫)। পরে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে মৃত্যু হয় ফাহাদের এক খালার। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলার ডাংরী এলাকায় ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনা ঘটে।

এ ছাড়া গত শুক্রবার রাতে ও গতকাল সড়ক দুর্ঘটনায় গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে এক ছাত্রলীগ নেতাসহ তিন মোটরসাইকেল আরোহী ও গাজীপুরের কালিয়াকৈরে গৃহবধূ নিহত এবং চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আল্লামা আহমদ শফীর জানাজায় অংশ নিতে যাওয়ার পথে সীতাকুণ্ডে পাঁচজন আহত হয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শী, থানা-পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও হাসপাতাল সূত্রে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

ময়মনসিংহ (আঞ্চলিক) : নান্দাইলে নিহত ফাহাদ আলম (৩২) শেরপুরের শ্রীবর্দী উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। তাঁর খালা নিহত ঝরনা আক্তারের (৪৫) বাড়ি জামালপুরের বকশিগঞ্জ উপজেলায়। অন্য আহতরা হলেন শারমীন আক্তার (১২), শাহনাজ বেগম (২৫), হোসাইন আহমেদ (২৫), জেবু আক্তার (৩৫), হাসিনা শাহীন রোজী (৫২), বনা আক্তার (২০), মাখন (৫০), জারিফ (১২), ফেরদৌসী (৫০) ও শামীম (২৫)। তাঁরা শ্রীবর্দী ও বকশিগঞ্জের বাসিন্দা। তাঁদের নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত হোসাইন আহমেদ বলেন, তাঁরা হাওর দেখার জন্য কিশোরগঞ্জের নিকলী যাচ্ছিলেন।

ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে একটি কুকুরের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে চালক মাইক্রোবাসটি পাশ কাটিয়ে সামনে এগোতে গেলে বিপরীত দিক থেকে একটি পিকআপ চলে এলে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে গাড়ি দুটির সামনের অংশ দুমড়ে সড়কের পাশে ছিটকে পড়ে।

গোপালগঞ্জ ও মুকসুদপুর : ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের মুকসুদপুর উপজেলার কলেজ মোড়ে গত শুক্রবার রাত ১১টার দিকে যাত্রীবাহী কোচের চাপায় তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন। নিহতরা হলেন মুকসুদপুরের সুন্দরদী গ্রামের বিলাল ঠাকুরের ছেলে ও মুকসুদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সহসভাপতি আল-আমিন ঠাকুর (২২), একই উপজেলার চণ্ডিবর্দী গ্রামের আনোয়ার সরদারের ছেলে ফয়সাল সরদার (৩০) ও লখাইরচড় গ্রামের শফি মিয়ার ছেলে লিয়াকত মিয়া (৩২)।

নিহতরা একই মোটরসাইকেলে করে রাস্তা পার হওয়ার সময় গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী গোল্ডেন লাইন পরিবহনের একটি দ্রুতগামী বাস মোটরসাইকেলটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে ফয়সাল এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আল-আমিন ও ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে লিয়াকত মারা যান। বাসটি বেপরোয়াভাবে মোটরসাইকেলটিকে টেনে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে নিয়ে যায়। এতে মোটরসাইকেলটির জ্বালানি ট্যাংকে আগুন ধরে যায়। চালক বাসটি থামিয়ে দেন। পরে বাসে আগুন লাগলে যাত্রীরা তড়িঘড়ি করে বাস থেকে নেমে যায়। আগুনে বাসের আসন পুড়ে গেছে। মুকসুদপুর ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ ঘাতক বাসটিসহ চালককে আটক করেছে। এ ঘটনায় নিহতদের পরিবার মামলা করবে।

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) : ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কালিয়াকৈর উপজেলার শ্রীফলতলী এলাকায় গতকাল বিকেলে বাসচাপায় নিহত মোটরসাইকেল আরোহীর নাম ইয়াসমিন আক্তার (৪০)। এ দুর্ঘটনায় তাঁর স্বামী কহিনুর ইসলাম (৫০) আহত হয়েছেন। তাঁদের বাড়ি পূর্বচান্দরা এলাকায়।

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) : সীতাকুণ্ড উপজেলার বড় দারোগারহাট ওজন স্কেল এলাকায় গতকাল সকালে চট্টগ্রামমুখী একটি মাইক্রোবাস দাঁড়িয়ে থাকা কাভার্ড ভ্যানের পেছনে ধাক্কা

দিলে মাইক্রোবাসটির পাঁচ যাত্রী আহত হন। দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাঁদের চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁরা হলেন কুমিল্লার বরুড়া পদুয়া গ্রামের নুরুল ইসলাম (৫৫) ও আবদুল গফুর (৬০)।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা