kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

বালু ব্যবসায় হুমকিতে রেল সেতু

নরসিংদী প্রতিনিধি   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বালু ব্যবসায় হুমকিতে রেল সেতু

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশালে শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর নির্মিত রেল সেতু ঘিরে অবৈধভাবে বালু ব্যবসা করছেন স্থানীয় এক যুবলীগ নেতা। ছবি : কালের কণ্ঠ

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকার শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর নির্মিত দুটি রেল সেতুর পার দখল করে মনির হোসেন মোল্লা নামের স্থানীয় এক যুবলীগ নেতা অবৈধভাবে গড়ে তুলেছেন বালুর আড়ত। নদীপারে অবস্থিত রেল সেতুর কয়েকটি পিলারজুড়ে বালু রেখে ব্যবসা চালিয়ে আসছেন তিনি। এতে ঝুঁকিতে পড়েছে পাশাপাশি থাকা রেল সেতু দুটি।

স্থানীয় লোকজন জানায়, ঘোড়াশাল পৌর যুবলীগের সভাপতি মনির হোসেন মোল্লা দলীয় প্রভাব খাটিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নদীর তীর ঘেঁষে রেলের জমিতে অবৈধভাবে বালুর জমজমাট ব্যবসা করে আসছেন। এসব বালুর আড়ত থেকে কয়েক মিনিট পর পর ট্রলি ও ট্রাক দিয়ে বালু ভরে অন্যত্র বিক্রি করা হচ্ছে। বালু আনা-নেওয়ার সময় এসব ভারী যানবাহনের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে রেল সেতুর একাধিক পিলার। দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে বালুর ব্যবসা চালিয়ে গেলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। এতে হুমকির মুখে পড়েছে শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর নির্মিত রেল সেতু দুটি। এ ছাড়া ঘোড়াশাল-পলাশ আঞ্চলিক সড়ক দিয়ে এসব বালু আনা-নেওয়ার কারণে সড়কজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ধুলাবালি। বালু উড়ে যাওয়ায় আশপাশের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের নিয়মিত কার্যক্রম চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে।

গতকাল সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে সরেজমিন পরিদর্শন করেন ঘোড়াশাল পৌর নায়েব আহসান হাবিব। তিনি জানান, স্থানীয় যুবলীগ নেতা মনির হোসেন বালু জমিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছেন। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।

যুবলীগ নেতা মনির হোসেন বলেন, ‘সড়কে কাজ চলাকালে ঠিকাদাররা রেল সেতুর পাশে বালু জমিয়ে রেখে রাস্তার কাজ করছিল। এসব বালুর ব্যবসার সঙ্গে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই।’ ইউএনও রোমানা ইয়াসমিন বলেন, ‘রেল সেতু এলাকায় বালুর আড়ত দিয়ে ব্যবসা করছেন মনির হোসেন মোল্লা। খুব শিগগির অবৈধ বালু সরানোর জন্য সেখানে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা