kalerkantho

শুক্রবার । ৭ কার্তিক ১৪২৭। ২৩ অক্টোবর ২০২০। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতা

রাজশাহীতে সড়ক বন্ধ করে কাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুই লেনের সড়ক চার লেনের পুনর্নির্মাণকাজ করছে রাজশাহী সিটি করপোরেশন। রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জের একটি অংশ নগরীর ভেতর দিয়ে যাওয়া এই মহাসড়কের প্রশস্তকরণের কাজ চলছে প্রায় ছয় মাস ধরে, কিন্তু ১৫ দিন ধরে হঠাৎ রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে কাজ করা হচ্ছে। কার্পেটিংয়ের সময় সাধারণত রাস্তার এক পাশ বন্ধ করে আরেক পাশ দিয়ে যান চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়। তার পরও রাস্তায় কিছুটা গোলযোগ হয়। সেটি ঠিকাদারকে আবারও নিজ দায়িত্বে ঠিক করে দিতে হয়। সেই ঝামেলা এড়াতে মহাসড়কটিই বন্ধ করে চালানো হচ্ছে প্রশস্তকরণের কাজ। এতে এই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী লাখ লাখ মানুষকে পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে।

অভিযোগ রয়েছে, ঠিকাদার হলেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাক হোসেন এবং আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া সাবেক বিএনপি নেতা বজলুর রশিদ। তাঁদের প্রভাবের কারণে পুরো রাস্তাটিই বন্ধ করে চলছে প্রশস্তকরণের কাজ।

স্থানীয় লোকজন জানায়, ছয় মাস আগে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কের নগরীর বহরমপুর-কাশিয়াডাঙ্গা প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তাটি প্রশস্তকরণের কাজ শুরু হয়। ২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে দুই লেন থেকে সড়কটি চার লেনের কাজ করা হচ্ছে, কিন্তু ১৫ দিন ধরে চার লেনই বন্ধ করে দিয়ে সড়ক সংস্কার ও প্রশস্তকরণের কাজ করা হচ্ছে। এতে ভোগান্তির সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখে গেছে, নগরীর বহরমপুর বাইপাস মোড় লেভেলক্রসিংয়ের কাছে ইট ও বালুর ভরাট দিয়ে সড়কটি বন্ধ করা হয়েছে। চারকুঠার মোড় এলাকায় ট্রাক থেকে প্রশস্তকরণকাজের মালামাল সড়কের মাঝখানে ফেলা হচ্ছে। ফলে দুই পাশ থেকেই বন্ধ হয়ে গেছে যান চলাচল।

বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ করা হলে ঠিকাদারের লোক পরিচয় দেওয়া রবিউল ইসলাম বলেন, রাস্তাটির কাজের সময় গাড়ি চলাচল করলে আবার নতুন করে সংস্কার করতে হবে। তাই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সাময়িক সময়ের জন্য। কাজ শেষ হওয়ার কয়েক দিন পরেই খুলে দেওয়া হবে।

ঠিকাদার ও আওয়ামী লীগ নেতা মোস্তাক হোসেন ও নজরুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁদের পাওয়া যায়নি।

রাসিকের কর্মকর্তা খায়রুল বাসার বলেন, ‘ঠিকাদারের সামান্য ক্ষতির জন্য রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে কাজ করার কোনো নিয়ম নেই, কিন্তু তাঁরা কেন এটি করলেন সেটি তাঁদের নিজস্ব ব্যাপার। তার পরও বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা