kalerkantho

বুধবার । ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১২ সফর ১৪৪২

করোনা চিকিৎসায় আর্মি এভিয়েশনের তৈরি আইসোলেশন পড ও বেড

বিশেষ প্রতিনিধি   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনা প্রতিরোধ যুদ্ধের অংশ হিসেবে সেনাবাহিনী কাজে লাগাচ্ছে তাদের তৈরি আইসোলেশন পড ও বেড। আর্মি এভিয়েশন গ্রুপের অধীন আর্মি এভিয়েশন মেইনটেন্যান্স ওয়ার্কশপ এসব  আইসোলেশন পড ও বেড  তৈরি করেছে। আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে দেশি ্প্রযুক্তিতে প্রথমে তৈরি করা হয় আইসোলেশন পড। পরে চিকিৎসকদের ্পরামর্শে এটির উন্নতি সাধন ও আধুনিক সুবিধা সংযোজন করে আইসোলেশন বেডও নির্মাণ করা হয়। এই আইসোলেশন পড ও বেড তৈরিতে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়। বিদেশ থেকে আমদানি করা হলে এর ব্যয় বাড়ত তিন থেকে চার গুণ।

সেনা সদর জানায়, করোনা মহামারির সম্ভাব্য ভয়াবহতা উ্পলব্ধি করে বাংলাদেশ সরকার বেসামরিক ্প্রশাসনকে সহায়তা করতে সেনাবাহিনীকে নিয়োগ করে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একে যুদ্ধের সঙ্গে তুলনা করেন। সেনাবাহিনী এই যুদ্ধে ‘অপারেশন কভিড শিল্ড’ নামে সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে জনগণের পাশে দাঁড়ায়। দেশে লকডাউন পরিস্থিতিতে ্প্রত্যন্ত অঞ্চলে সম্মুখযোদ্ধাদের জরুরি ওষুধ ও সুরক্ষা সরঞ্জাম পৌঁছানো দুরূহ হয়ে পড়লে সেনাবাহিনী ্প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ আর্মি এভিয়েশন গ্রুপকে এসব সরঞ্জাম ্পরিবহনের নির্দেশ দেন। আর্মি এভিয়েশন নিজস্ব বিমান ও হেলিকপ্টারের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সেনানিবাসগুলোতে ব্পুিল ্পরিমাণ ওষুধ, চিকিৎসা ও সুরক্ষাসামগ্রী ্পৌঁছে দেয়।

পরিস্থিতির অবনতি হলে জটিল ও সংকটাপন্ন রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে স্থানান্তর জরুরি হয়ে পড়ে। করোনা ছোঁয়াচে রোগ হওয়ায় স্পর্শ এড়িয়ে বিমান বা অ্যাম্বুল্যান্সে রোগী পরিবহন করা ঝুঁকিপূর্ণ ও চ্যালেঞ্জিং হয়ে পড়ে। এ ধরনের রোগী পরিবহনে উপযুক্ত আইসোলেশন পড বা চেম্বার বাংলাদেশসহ বিশ্বে অপ্রতুল। এ রকম সংকটময় ্পরিস্থিতিতে ১৫ এপ্রিল থেকে নিজেদের তৈরি এসব আইসোলেশন পড ব্যবহারে সেনাবাহিনীর সংকটাপন্ন রোগী পরিবহনের সক্ষমতা বহুগুণ বাড়ে। ্পরে গত ১৮ মে আইসোলেশন বেড ব্যবহার শুরু হলে হাসপাতালগুলোয় ্পরিচর্যা সুবিধা বৃদ্ধি ্পায়।

সেনা সদর আরো জানায়, এরই মধ্যে তিন শতাধিক রোগীকে আইসোলেশন বেডের মাধ্যমে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়েছে। আইসোলেশন পড ব্যবহার করে আর্মি এভিয়েশন গ্রুপ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে  করোনা রোগীদের ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে আনা অব্যাহত রেখেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা