kalerkantho

বুধবার । ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১২ সফর ১৪৪২

সেই শাপলাবাগেই নাশকতার ছক

রিমান্ডে নব্য জেএমবির নাইমুজ্জামান এই তথ্য দিয়েছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সেই শাপলাবাগেই নাশকতার ছক

২০০৫ সালে সিলেটের শাপলাবাগে জঙ্গি নেতা শায়খ আবদুর রহমান বাসা ভাড়া নিয়ে সিরিজ বোমা হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন। সে অনুযায়ী সারা দেশে ব্যাপক নাশকতা চালিয়েছিলেন তাঁরা। ফের সেই শাপলাবাগেই একটি বাসা ভাড়া করে সিলেটে হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর মাজারসহ ঢাকার পল্টন ও নওগাঁর শাপাহারে বড় ধরনের বোমা হামলার পরিকল্পনা করছিল নব্য জেএমবি।

রিমান্ডের প্রথম দিন গতকাল বৃহস্পতিবার সিটিটিসিকে এই তথ্য জানিয়েছে সদ্য গ্রেপ্তার নব্য জেএমবির সামরিক শাখার প্রধান প্রশিক্ষক শেখ সুলতান মোহাম্মদ নাইমুজ্জামান। তিনি স্বীকার করেছেন, সামরিক প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে সিলেটের শাপলাবাগের বাসাটি ভাড়া নেওয়া হয়েছিল।

ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের নজরদারির কারণে সে পরিকল্পনা ভেস্তে গেলেও বিচ্ছিন্নভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় জঙ্গিদের নাশকতার পরিকল্পনা রয়েছে বলে সিটিটিসি জানিয়েছে।

নাইমুজ্জামানসহ সিলেট থেকে গ্রেপ্তার আরো জঙ্গিকে আজ শুক্রবার থেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে জানিয়ে সিটিটিসির উপকমিশনার সাইফুল ইসলাম বলেন, ঈদের আগেই দেশের কয়েকটি জেলায় বোমা হামলার পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের। এই কারণে নব্য জেএমবির শুরা সদস্যদের নেতৃত্বে তাঁরা সিলেটের শাপলবাগের একটি বাসায় কম্পিউটার প্রশিক্ষণের আড়ালে সামরিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছিলেন।

নাইমুজ্জামানের তথ্যের বরাত দিয়ে ডিসি সাইফুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, বর্তমানে অনলাইনভিত্তিক যোগাযোগ বেড়েছে জঙ্গিদের। এর বাইরে বিচ্ছিন্নভাবে জঙ্গিরা নাশকতার পরিকল্পনা করছে। তবে জঙ্গিদের এখন আর বড় হামলা করার কোনো সামর্থ্য নেই।

শেখ সুলতান মোহাম্মদ নাইমুজ্জামান ছাত্রজীবনে ইসলামী ছাত্রশিবিরের সক্রিয় সদস্য ছিলেন দাবি করে জিজ্ঞাসাবাদে সিটিটিসিকে জানিয়েছেন, ছাত্রশিবিরের বড় একটি অংশ বরাবরই জঙ্গিবাদের সংস্পর্শে থেকে নাশকতার পরিকল্পনায় সম্পৃক্ত রয়েছে। তাঁদের অনেকেই গ্রেপ্তার হলেও বড় একটি অংশ এখনো গ্রেপ্তার হয়নি। তাঁরা বিভিন্ন ছদ্মবেশে দেশ ও দেশের বাইরে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে।

গত দুই দিনে ধারাবাহিকভাবে ‘অপারেশন এলিগ্যান্ট বাইট’ চালিয়ে সিলেটের মিরাবাজার, টুকের বাজার, দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন স্থান থেকে নব্য জেএমবির সামরিক শাখার পাঁচ জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করেছে সিটিটিসি।  তাঁরা হলেন সায়েম মির্জা, রুবেল আহমেদ, সানাউল ইসলাম সাদিক,  শেখ সুলতান  মোহাম্মদ নাইমুজ্জামান ও আব্দুর রহিম জুয়েল। এ সময় তাঁদের  হেফাজত  থেকে  বোমা তৈরির সরঞ্জাম, ল্যাপটপ ও মোবাইল  ফোন উদ্ধার করা হয়। গত বুধবার তাঁদের সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে সিটিটিসি।

জঙ্গিদের এখন বড় হামলা করার সামর্থ্য নেই জানিয়ে সিটিটিসি সূত্র জানায়, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট হামলা ছিল জেএমবির দিক থেকে সাংগঠনিক এবং সফল হামলা। তবে বর্তমানে সাংগঠনিক কাঠামো তাদের না থাকলেও একেবারে দুর্বল নয় তারা। বিচ্ছিন্নভাবে তাদের জঙ্গি কার্যক্রম চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা