kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ কার্তিক ১৪২৭। ২০ অক্টোবর ২০২০। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

যোগাভ্যাস

হিপ অ্যান্ড বাটক টোনিং

৬ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হিপ অ্যান্ড বাটক টোনিং

দীর্ঘ সময় ধরে এক জায়গায় বসে কাজ করেন যাঁরা, এই আসন তাঁদের জন্য। কোমর ও নিতম্ব সুঠাম করার আসনটি অভ্যাস করলে মেরুদণ্ড ও এর কাছাকাছি থাকা পেশিগুলো সুস্থ থাকবে

পদ্ধতি

্প শিরদাঁড়া সোজা করে চেয়ারে বসুন। মাথা ও ঘাড় সোজা থাকবে। দুই পা মাটিতে রাখুন। চেয়ারে হেলান দেবেন না। দুই হাত রাখুন কোলের ওপর আরামদায়কভাবে। এটিই আসনটির প্রারম্ভিক অবস্থান।

► একটি বড় তোয়ালে ছোট করে ভাঁজ করে দুই হাঁটুর মাঝখানে রাখুন। শ্বাস নিতে নিতে দুই হাঁটু দিয়ে ভাঁজ করা তোয়ালে যতটা সম্ভব চাপ দিন। এই অবস্থানে মনে মনে পাঁচ গুনতে হবে। এবার শ্বাস ছাড়তে ছাড়তে হাঁটু আলগা করুন, এক রাউন্ড সম্পূর্ণ হলো। এভাবে সাত রাউন্ড অভ্যাস করুন।

► অভ্যাস শেষ হলে হাঁটুর মাঝখান থেকে তোয়ালে সরিয়ে নিয়ে আসন শুরুর অবস্থানে ফিরে এসে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিন।

► এবার দুই হাত দিয়ে চেয়ারের দুই পাশ হালকাভাবে ধরুন। নিতম্বের অবস্থানের দিকে মনোযোগ দিন।

► শ্বাস নিতে নিতে নিতম্ব ও মলদ্বার ভেতরের দিকে টেনে নিন। দুই দিক যেন একত্রিত হয়ে থাকে। মনে মনে ভাবুন চেয়ার থেকে যেন কিছুটা ওপরের দিকে উঠিয়ে নিতে পারছেন।

► এই অবস্থানে থেকে মনে মনে পাঁচ গুনুন। এবার শ্বাস ছেড়ে আগের অবস্থানে ফিরে আসুন।

► এক রাউন্ড সম্পূর্ণ হলো। এভাবে সাত রাউন্ড অভ্যাস করতে হবে।

সতর্কতা

যদি নিতম্বে কোনো চোট বা খুব ব্যথা থাকে তবে আসনটি অভ্যাস করবেন না। তবে অল্পস্বল্প ব্যথা থাকলে ধীরে ধীরে অভ্যাস শুরু করতে পারেন। স্কুইজ করার সময় ব্যথা বাড়লে অভ্যাস করবেন না।

উপকারিতা

কোর মাসল ও ডিপ মাসল দুর্বল হয়ে গেলে কোমরে ও পিঠে ব্যথা করে এবং নড়াচড়া করতে অসুবিধা হয়। এমনকি হাঁটাচলা করতে গেলে ভারসাম্য বিঘ্নিত হয়ে পড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। বেশি বয়সে আচমকা পড়ে গিয়ে নেক ফিমার ফ্র্যাকচার প্রতিরোধ করতে এই আসনটি সাহায্য করে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা