kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ কার্তিক ১৪২৭। ২০ অক্টোবর ২০২০। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তাদের সংবাদ সম্মেলন

হত্যাকারীদের শাস্তি না হলে রাস্তায় নামব

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও কুষ্টিয়া   

৬ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



হত্যাকারীদের শাস্তি না হলে রাস্তায় নামব

পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা নিহতের ঘটনায় অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তাদের সংবাদ সম্মেলন। গতকাল বিকেলে রাজধানীর মহাখালীতে রিটায়ার্ড আর্মড ফোর্সেস অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের (রাওয়া) ক্লাবে। ছবি : কালের কণ্ঠ

পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা নিহত হওয়ার ঘটনায় জড়িতদের তিন মাসের মধ্যে বিচার এবং দোষীদের ফাঁসি কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তারা। এ ছাড়া বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী পুলিশ বাহিনীকে সুশৃঙ্খল বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে পুনর্গঠনের দাবিও জানিয়েছেন তাঁরা। গতকাল বুধবার বিকেলে রাজধানীর মহাখালীতে রিটায়ার্ড আর্মড ফোর্সেস অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের (রাওয়া) ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানানো হয়। অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তারা আরো বলেন, বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত রাওয়ার পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। দোষীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করতে হবে। কক্সবাজারের এসপিকে অবিলম্বে প্রত্যাহার ও ওসি প্রদীপকে গ্রেপ্তার করতে হবে। সিফাত, তাঁর চালকসহ সব সাক্ষীকে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি তুলে ধরেন রাওয়া চেয়ারম্যান মেজর (অব.) খন্দকার নূরুল আফসার। উপস্থিত ছিলেন রাওয়ার সেক্রেটারি লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) মোশারফ হোসেন, লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মইনুল ইসলাম, রাওয়ার কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মেজর (অব.) মুসা, মেজর (অব.) আবদুস সালাম, মেজর (অব.) শাহরিয়ার, কর্নেল (অব.) আসিফ, কর্নেল (অব.) মাহমুদ, সাবেক সভাপতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোয়াজ্জেম প্রমুখ।

রাওয়া চেয়ারম্যান বলেন, ‘গত ৩১ জুলাই আমাদের এক ভাই মেজর সিনহা নির্মমভাবে পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন। তিনি সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বাহিনী এসএসএফের চাকরি করেছেন। ১০টি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এ বাহিনীতে আসতে হয়। এর মধ্যে সততা, নিষ্ঠা, দেশপ্রেম, পেশাগত দক্ষতা ও কাজের প্রতি আনুগত্য দেখেই এসএসএফে দেওয়া হয়। কী কারণে মেজর সিনহার মতো এমন যুবককে মরতে হলো?’

তিনি বলেন, ‘আমরা সাবেক সেনাপ্রধান, বিমানবাহিনী প্রধান ও নৌবাহিনী প্রধানকে নিয়ে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার দাবি করব। আপনাদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি তিনি দ্রুত পদক্ষেপ নিয়েছেন। সেনাপ্রধানকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘যদি আমাদের আশা পূরণ না হয় তাহলে রাস্তায় নামতে বাধ্য হব। উঁচু গলায় যদি কথা বলতে হয়, তাহলে তা-ই করব আমরা। আমাদের অনুভূতি যদি সরকার বুঝতে পারে, তাহলে আশা করব দ্রুত বাস্তবায়ন করবে।’ তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় আইন লঙ্ঘিত হয়েছে, সংবিধানও লঙ্ঘন করা হয়েছে।’

রাওয়া সেক্রেটারি বলেন, ‘৪০ বছর আগে রাওয়া শুরু হয়েছে। প্রথমবারের মতো এমন সংবাদ সম্মেলন করতে হলো। দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আপনাদের সামনে কথা বলতে হচ্ছে। সকালে অনন্ত ৫০০ সদস্যকে নিয়ে আমাদের বৈঠক হয়েছে।’

ছাত্র অধিকার পরিষদের মানববন্ধন : মেজর (অব.) সিনহা নিহতের ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল দুপুরে রাজধানীর শাহবাগে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। সংগঠনের নেতারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। তাঁরা বলেন, দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের সর্বশেষ শিকার মেজর (অব.) সিনহা। তাঁরা অভিযোগ করেন, এই বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের মোটিভ পরিবর্তন করে মাদকের মামলা সাজানো হচ্ছে।

শিপ্রার পরিবার মানতে পারছে না এই পরিস্থিতি : কুষ্টিয়ার মিরপুরের হাজরাহাটি গ্রামের মেয়ে শিপ্রা রানী দেবনাথ। মেজর (অব.) সিনহার সঙ্গে শিপ্রাসহ তাঁর দুই বন্ধু সিফাত ও তাহসিন কক্সবাজারে গিয়েছিলেন ভিডিও ডকুমেন্টারির কাজে। গত ৩১ জুলাই পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা নিহত হওয়ার পর শিপ্রা রানী দেবনাথসহ তাঁর দুই বন্ধুকে আটক করে পুলিশ। তাঁরা এখন জেলহাজতে আছেন। শিপ্রা স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। শিপ্রার পরিবারের সদস্যরা এই অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি কোনোভাবেই মানতে পারছেন না।

শিপ্রার পরিবারের সদস্যরা জানান, ছবি তোলা ও ভিডিওগ্রাফির কাজের অংশ হিসেবে শিপ্রা এবং তাঁর বন্ধুরা সিনহার ডকুমেন্টারি নির্মাণকাজের সঙ্গে যোগ দিতে কক্সবাজারে যান। এরপর ঘটনাক্রমে মেজর সিনহা পুলিশের গুলিতে নিহত হলে শিপ্রাদের আটক করা হয়। তাঁদের হোটেল কক্ষে মদ পাওয়ার বিষয়টি শিপ্রার পরিবারের সদস্যরা কোনোভাবেই মানতে পারছেন না। শিপ্রার বাবা সাবেক বিজিবি কর্মকর্তা নবকুমার দেবনাথ অসুস্থতার কারণে কথা বলতে চাননি। তবে তাঁর একমাত্র ভাই শুভজিত কুমার দেবনাথ বলেন, ‘আমার বোনের মতো উদীয়মান চলচ্চিত্র নির্মাতার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে, তা একটি সাজানো গল্প। আশা করি, দেশের বিচারব্যবস্থা সুষুম তদন্তের মাধ্যমে সঠিক তথ্য আমাদের সবার কাছে পৌঁছে দেবে।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা