kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

চিরনিদ্রায় শায়িত যমুনা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চিরনিদ্রায় শায়িত যমুনা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুলকে গতকাল বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়। শেষবিদায়ের আগে শেষবারের মতো প্রিয়জনের কফিনের পাশে স্বজনরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম বাবুল। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে বনানী কবরস্থানে তাঁর লাশ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়। এর আগে দুপুর ১টার দিকে আল মারকাজুল ইসলাম হাসপাতালের একটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত লাশবাহী গাড়িতে করে নুরুল ইসলামের মরদেহ নিয়ে আসা হয় যমুনা ফিউচার পার্ক প্রাঙ্গণে। বাদ জোহর ফিউচার পার্ক মসজিদ প্রাঙ্গণে জানাজা শেষে তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

করোনাকালীন সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে স্বল্প পরিসরে জানাজা নামাজের আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু এর পরও কয়েক শ মানুষ বিশেষ করে মরহুমের দীর্ঘদিনের সহকর্মী, বন্ধু-বান্ধব ও আত্মীয়-স্বজন জানাজায় উপস্থিত হন।

জানাজার আগে বাবার রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া চান মরহুমের ছেলে ও যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম ইসলাম। এ সময় তিনি মুক্তিযুদ্ধে ও দেশের কল্যাণে তাঁর বাবার অবদানের কথা স্মরণ করেন।

শামীম ইসলাম বলেন, ‘আমার বাবা আজকে যে পর্যন্ত এসেছেন, তাঁর এই অগ্রযাত্রা অত সহজ ছিল না। অনেক সংগ্রাম, ত্যাগ-তিতিক্ষার মাধ্যমে তাঁকে এ পর্যন্ত আসতে হয়েছে। কোনো মানুষ ভুলত্রুটির ঊর্ধ্বে নয়। তাঁর এই জীবন চলার পথে আপনাদের কেউ তাঁর কাছে মনে আঘাত পেতে পারেন। আজকে এই শেষ বিদায় লগ্নে আমি তাঁর ছেলে হিসেবে সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

জানাজার পরে মরহুমের কফিনে যমুনা গ্রুপের কর্মকর্তারা শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। যুগান্তর পরিবারের পক্ষে যুগান্তর সম্পাদক সাইফুল আলম এবং যমুনা টেলিভিশন পরিবারের পক্ষে প্রধান বার্তা সম্পাদক ফাহিম আহমেদের নেতৃত্বে সাংবাদিক-কর্মকর্তারা শ্রদ্ধা জানান।

গত সোমবার বিকেল ৩টা ৪০ মিনিটে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে ৭৪ বছর বয়সী শিল্পপতি নুরুল ইসলাম চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। গত ১৪ জুন অসুস্থ অবস্থায় তাঁকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা