kalerkantho

রবিবার । ২১ আষাঢ় ১৪২৭। ৫ জুলাই ২০২০। ১৩ জিলকদ  ১৪৪১

পাবনায় পৃথক ঘটনায় তিন খুন

পাবনা প্রতিনিধি   

৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাবনা সদর উপজেলার ভাড়ারা ও মধুপুরে দুজনকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গত শুক্রবার দিবাগত রাতে এ দুই হত্যার ঘটনা ঘটে। গতকাল শনিবার সকালে ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুর থেকে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সদর উপজেলায় নিহতরা হলেন ভাড়ারা ইউনিয়নের খাঁপাড়ার কালু খাঁর ছেলে হুকুম আলী খাঁ (৬৫) এবং আতাইকুলা থানার মধুপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে মজনু মিয়া (৪০)। রূপপুর থেকে যাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে, তিনি জহুরুল ইসলাম (৩৮)। তাঁর বাড়ি রূপপুরেই। ভাড়ারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাইদ জানান, শুক্রবার রাতে অজ্ঞাতপরিচয় কয়েক ব্যক্তি হুকুম আলীর বাড়তি গিয়ে ডাকাডাকি করে। এ সময় তিনি ঘর থেকে বাইরে বের হওয়া মাত্র গুলি করে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। ঘটনাস্থলেই মারা যান হুকুম আলী।

সদর থানার ওসি নাছিম আহম্মেদ জানান, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। কারা কী কারণে তাঁকে হত্যা করেছে, সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, সম্প্রতি হুকুম আলীর নাতি রবিউল ইসলামকে মারধরের ঘটনায় গত ৪ জুন থানায় স্থানীয় ১৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন তিনি। সেই মামলার জেরে এ হত্যার ঘটনা ঘটতে পারে। আতাইকুলা থানার মধুপুর গ্রামে মজনু মিয়াকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

আতাইকুলা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শরিফুল ইসলাম জানান, রাতে গ্রামের একটি চায়ের দোকানে তাস খেলে বাড়ি ফিরছিলেন মজনু। রাস্তায় পেছন থেকে দুর্বৃত্তরা তাঁকে ঘাড়ে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে আটক করা হয়েছে। হত্যার কারণ জানা যায়নি। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

পারিবাহিক কলহের জেরে জহুরুল খুন হয়ে থাকতে পারেন বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রীসহ দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

মন্তব্য