kalerkantho

রবিবার । ২৮ আষাঢ় ১৪২৭। ১২ জুলাই ২০২০। ২০ জিলকদ ১৪৪১

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যা

মাদারীপুরে দালালের বাড়িতে হামলা

করোনা আক্রান্ত জানানোর পর দালালকে হাসপাতালে ভর্তি করল পুলিশ

মাদারীপুর প্রতিনিধি   

৩০ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাদারীপুরে দালালের বাড়িতে হামলা

লিবিয়ায় গুলি করে ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার ঘটনার পর সে দেশে যাওয়া মাদারীপুরের ১৩ যুবকের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে খবর রয়েছে। নিখোঁজদের মধ্যে রাজৈর উপজেলার কয়েক তরুণ-যুবক রয়েছেন। ওই খবরে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় রয়েছে তাঁদের পরিবার। তাঁরা জীবিত না নিহত হয়েছেন, এরও কোনো সঠিক তথ্য মিলছে না।

এদিকে লিবিয়ায় ওই হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে স্থানীয় দালাল মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের জুলহাস শেখের বাড়িতে হামলা হয়েছে। নিখোঁজ তরুণ-যুবকদের অভিভাবক ও এলাকাবাসীর এই হামলার খবর পেয়ে থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় দালাল জুলহাস নিজেকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী বলে পরিচয় দেন। পরে পুলিশ তাঁকে সদর হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করে দেয়।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, লিবিয়ায় নিখোঁজদের মধ্যে রয়েছেন রাজৈর উপজেলার হোসেনপুরের আবদুর রহিম, বিদ্যানন্দী গ্রামের জুয়েল হাওলাদার ও মানিক হাওলাদার, টেকেরহাট এলাকার আসাদুল, মনির হোসেন ও আয়নাল মোল্যা, ইশিবপুর এলাকার সজীব ও শাহীন, সদর উপজেলার জাকির হোসেন, জুয়েল হোসেন, সৈয়দুল, ফিরোজ ও শামীম। তবে অনেকের পরিবার জানেও না তাদের সন্তান আদৌ বেঁচে আছেন কি না। অনেকে আবার হত্যাকাণ্ডের খবরও শোনেনি।

রাজৈরের হোসেনপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা নিখোঁজ জুয়েল হাওলাদারের বাবা রাজ্জাক হাওলাদার ও মা রহিমা বেগম বলেন, ‘আমাদের ছেলেসহ রাজৈরের বিভিন্ন এলাকার বেশ কয়েকজনকে দালালচক্র লিবিয়া নেওয়ার কথা বলে প্রত্যেকের কাছ থেকে চার-পাঁচ লাখ টাকা চুক্তি করে নিয়ে যায় প্রায় তিন-চার মাস আগে। এরপর লিবিয়ার ত্রিপলিতে না নিয়ে বেনগাজি নামে এক গ্রামে আটকে রেখে নির্যাতন শুরু করে। এরপর ভয়েজ রেকর্ডে নির্যাতনের শব্দ পাঠিয়ে আরো ১০ লাখ টাকা দাবি করে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা