kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ আষাঢ় ১৪২৭। ৭ জুলাই ২০২০। ১৫ জিলকদ  ১৪৪১

রাজধানীতে ব্যক্তিগত গাড়ির জট

পুলিশের তৎপরতা বৃদ্ধি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুলিশের তৎপরতা বৃদ্ধি

রাজধানী ঢাকায় করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি থাকলেও কোনো কিছুরই তোয়াক্কা করছে না মানুষ। অবাধে সড়কে বের হচ্ছে সাধারণ মানুষ, মানছে না সামাজিক দূরত্ব। পুলিশ ধরলেই বলছেন বিভিন্ন কাজের কথা। ফলে যানজটে আবার স্থবির হয়ে পড়েছে ঢাকা। অবাধে চলছে যানবাহনও।

গত কয়েক দিনের মতো বুধবারও রাজধানীর সড়কে সড়কে যানজট দেখা গেছে। যানজট ও মানুষের অবাধ চলাচলে করোনার ঝুঁকিও বেড়েই চলছে। এতে সচেতনতার অভাবকেই দায়ী করছেন দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তারা।

গত প্রায় আড়াই মাসেরও বেশি সময় পর ঢাকায় অতিরিক্ত যানজট দেখা গেছে। রাজধানীর বনানী, মিরপুর, ফার্মগেট, বাবুবাজার ও যাত্রাবাড়ী এলাকায় অনেক যানজট দেখা যায়। ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লেগুনা, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস, সিএনজি অটোরিকশা ও মোটরবাইকের দখলে সড়ক। গত কয়েক দিনের তুলনায় গতকাল পুলিশের তৎপরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় অনেককেই সচেতন হতে দেখা গেছে।

রাজধানীর আজিমপুর মোড় হয়ে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে নিউ মার্কেটের দিকে যাচ্ছিলেন এক প্রাইভেট কারচালক। চেকপোস্টের পুলিশ কোথায় যাচ্ছেন জানতে চাইলে সঠিক কারণ দেখাতে পারেনি রাব্বি নামের ওই চালক। পরে তাকে লালবাগের দিকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

একই অবস্থা রাজধানীর বাবুবাজার, বাদামতলী, মৌলভীবাজার ও চকবাজার এলাকার। পাইকারি ক্রেতাদের ভিড়ে এসব এলাকায় মানুষের জট বেড়েছে। বেড়েছে পিক-আপ, ভ্যান, রিকশা। চকবাজার থানার ওসি মওদুদ হাওলাদার বলেন, ‘সামনে ঈদ থাকার কারণে পুরান ঢাকার পাইকারি বাজারগুলোতে মানুষের চাপ বেড়েছে। সামাজিক নিরাপত্তার বিষয়টি আমরা দেখছি। মানুষ আগের চাইতে সচেতন হয়েছে।’

আর ঈদকে সামনে রেখে একেবারেই পুরনো চেহারায় ফিরেছে রাজধানী। শুধু গণপরিবহন ছাড়া সব গাড়ি চলছে। আজিমপুর, নিউ মার্কেট, সায়েন্সল্যাব, বাংলামোটর, কারওয়ান বাজার, মগবাজার, রমনা, তেজগাঁও, বিজয় সরণি, হাতিরঝিল, ফার্মগেট, মানিক মিয়া এভিনিউসহ বিভিন্ন এলাকায় গাড়ির জটলা দেখা গেছে।

বিজয় সরণিতে দায়িত্বরত এক পুলিশ কনস্টেবল জানান, গত দুই মাসের তুলনায় এখন গাড়ির চাপ অনেক বেড়েছে। যানজটের সৃষ্টি যেন না হয় সে জন্য আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা