kalerkantho

শনিবার । ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৩০  মে ২০২০। ৬ শাওয়াল ১৪৪১

করোনার ভয়ে মাকে ছেড়ে পালাল ছেলে-মেয়ে!

আঞ্চলিক প্রতিনিধি   

৮ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনার ভয়ে মাকে ছেড়ে পালাল ছেলে-মেয়ে!

প্রায় ৩০ বছর ধরে ছেলে-মেয়েদের কাছেই ভাগাভাগি করে ছিলেন স্বামীহারা সালেহা খাতুন (৬৫)। কিন্তু হঠাৎ শ্বাসকষ্ট শুরু হলে করোনার ভয়ে ছেলে-মেয়ে মাকে গ্রামের বাড়িতে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে পাড়া-প্রতিবেশী তাঁকে নান্দাইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তিন দিন ধরে তিনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি কক্ষে আইসোলেশনে আছেন। তাঁর নমুনা নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার ময়মনসিংহে পাঠানো হয়েছে। সালেহা খাতুন নান্দাইল উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়নের তসরা গ্রামের মৃত সামছুদ্দিনের স্ত্রী। স্থানীয় সূত্র ও ওই বৃদ্ধার পরিবারের লোকজন জানায়, স্বামী মারা যাওয়ার পর তিন ছেলে ও তিন মেয়েকে নিয়ে চলে যান শ্রীপুরের বর্মী এলাকায়। সেখানে প্রথমে পোশাক কারখানায় এবং পরে বাসাবাড়িতে কাজ করে কোনো রকমে তাঁর দিন চলছিল। এর মধ্যে ছেলে-মেয়েদের সংসার আলাদা হয়। সালেহা খাতুন পর্যায়ক্রমে তাদের সংসারে থাকতে শুরু করেন। সর্বশেষ সালেহা খাতুন তাঁর ছোট ছেলে খোকনের সঙ্গে ছিলেন। সেখানে তাঁর শ্বাসকষ্ট শুরু হলে গ্রামের বাড়ি নান্দাইলে এক চাচাতো ভাইয়ের বাসায় তাঁকে রেখে বর্মীতে ফিরে যান খোকন। এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা মো. আজিজুল ইসলাম জানান, ওই বৃদ্ধার শারীরিক অবস্থা খারাপ হতে থাকলে তাঁকে নান্দাইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। পরে খোকনের সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁর ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তাঁর এক বোন শিরিনা আক্তার জানান, চার সন্তান নিয়ে তিনি খুব কষ্ট করে সংসার চালাচ্ছেন। তাঁর পক্ষে মায়ের খোঁজ নেওয়া সম্ভব নয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা