kalerkantho

রবিবার। ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৭ জুন ২০২০। ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

সংক্ষিপ্ত খুতবায় জুমা আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে গত কয়েক জুমার ধারাবাহিকতায় গতকাল শুক্রবার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ বেশির ভাগ মসজিদে সংক্ষিপ্ত খুতবা ও সুরা পাঠের মাধ্যমে কম সময়ে নামাজ হয়েছে। মুসল্লিদের উপস্থিতিও ছিল অনেক কম। জুমার ফরজ দুই রাকাত নামাজের পরই ফাঁকা হয়ে যায় জাতীয় মসজিদ।

এর আগে করোনা পরিস্থিতির কারণে আলেমদের পরামর্শ অনুযায়ী জুমার নামাজে দেশের সব মসজিদে বাংলা বয়ানকে নিরুৎসাহিত করে শুধু সংক্ষিপ্ত খুতবা ও ফরজ নামাজ পড়ার আহ্বান জানায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন। পাশাপাশি নামাজের সময় কাতারে ফাঁকা হয়ে দাঁড়ানোর অনুরোধ জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

এ ছাড়া বয়স্ক মুসল্লিসহ যেকোনো বয়সীদের, যাদের হাঁচি-কাশি, জ্বর কিংবা গলা ব্যথা রয়েছে তাদের জুমাসহ সব নামাজ বাসায় পড়তে বলা হয়েছে। পাশাপাশি যেকোনো রোগে আক্রান্তদের মসজিদে না যাওয়ারও পরামর্শ দেয় ইসলামিক ফাউন্ডেশন। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সরকার ও বিশেষজ্ঞরা সতর্কতার জন্য যেসব নির্দেশনা দিচ্ছেন তা মেনে চলার জন্য জনগণকে অনুরোধ জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এ নির্দেশনার বেশ প্রভাব পড়ে গতকাল জুমার নামাজে। এদিন বায়তুল মোকাররমে মুসল্লিদের কোনো ভিড় ছিল না। ছিল না অজুখানায় চিরচেনা দৃশ্য। প্রায় সবাই বাসা থেকে অজু করে মসজিদে উপস্থিত হন। মসজিদে প্রবেশের সময় হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে মুসল্লিদের হাত ধোয়ানোর ব্যবস্থা ও টিস্যু সরবরাহ করা হয়। বেশির ভাগ মুসল্লিকে মুখে মাস্ক ও হাতমোজা ব্যবহার করে কাতারে দূরত্ব বজায় রেখে বসতে দেখা যায়।

দুপুর ১টা ২০ মিনিটে দ্বিতীয় আজানের পর সংক্ষিপ্ত খুতবা পাঠ ও নামাজ শেষ করতে ১০ মিনিটের মতো সময় লাগে। জুমার নামাজে ইমামতি ও নামাজ শেষে দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন ভারপ্রাপ্ত খতিব মুফতি মাওলানা এহসানুল হক জিলানী। মোনাজাতে বিশ্বের সব দেশকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষিত রাখতে এবং এ ভাইরাসে আক্রান্তদের আরোগ্য কামনা করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা