kalerkantho

শুক্রবার । ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৫ জুন ২০২০। ১২ শাওয়াল ১৪৪১

আরো চার শহরে করোনা পরীক্ষা

রাজশাহীতে শুরু হচ্ছে আজ, সিলেটে রবিবার, কক্সবাজার ও বরিশালে কয়েক দিনের মধ্যে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



আরো চার শহরে করোনা পরীক্ষা

আজ বুধবার থেকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল ও ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শুরু হচ্ছে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষা। আর সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আগামী রবি বা সোমবার থেকে এ কার্যক্রম শুরু হবে। এ ছাড়া বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আগামী তিন দিনের মধ্যে চালু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এবং কক্সবাজার সরকারি মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে দু-এক দিনের মধ্যে পরীক্ষা শুরু হবে। ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এসংক্রান্ত একটি ল্যাব স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কালের কণ্ঠ অফিস, বিশেষ প্রতিনিধি, নিজস্ব প্রতিবেদকদের পাঠানো সংবাদ।

রাজশাহী অফিস : রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সন্দেহভাজন রোগীদের কভিড-১৯ শনাক্তকরণের সব প্রস্তুতি প্রায় শেষ করা হয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা করোনা সন্দেহভাজন রোগীদের পরীক্ষা হবে মেডিক্যাল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের ল্যাবে। এখানে প্রতিদিন ছয়-সাতজন রোগীর করোনা পরীক্ষা করা যাবে। তবে যে কেউ চাইলেই করোনা পরীক্ষা করা হবে না বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দেখার পর তিনি করোনা মোটামুটি নিশ্চিত করলেই রোগীর নমুনা সংগ্রহ করে নির্ধারিত ল্যাবে পরীক্ষা করা হবে। এরপর সেই রোগীর আলাদা চিকিৎসা করা হবে। গতকাল মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে হাসপাতালের করোনা চিকিৎসা কমিটির আহ্বায়ক ডা. আজিজুল হক আজাদ এসব তথ্য জানিয়েছেন। তিনি আরো জানান, যেকোনো ধরনের ফ্লুর লক্ষণ থাকলেই তাদের সন্দেহের তালিকায় রাখা হচ্ছে। তবে কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলা ব্যথা ও জ্বর থাকা অর্থই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নয়। পরীক্ষার পরই সেটা নিশ্চিত করে বলা যাবে করোনায় আক্রান্ত রোগী কি না। আবার করোনা পজিটিভ রোগীরা যাতে অন্য কোনো রোগীর সংস্পর্শে আসতে না পারে সে জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটকে ব্যবহার করা হবে। সেখানেই আগামী দিনে করোনায় আক্রান্তদের রেখে চিকিৎসা দেওয়া হবে।

সিলেট অফিস : করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এসে গেছে—এখন চলছে বিশেষ ল্যাব স্থাপনের কাজ। আগামী রবিবার বা সোমবার থেকেই এখানে শুরু হবে কভিড-১৯ তথা করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষা। হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বিভাগীয় পর্যায়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপনের অংশ হিসেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এটি স্থাপন করছে। গত সোমবার করোনাভাইরাস পরীক্ষার আরটি-পিসিআর মেশিন ও সরঞ্জাম সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এসে পৌঁছে। গতকাল সকাল থেকে শুরু হয় মেশিন স্থাপন ও ল্যাব তৈরির কাজ। করোনা পরীক্ষার শুরুতেই ওসমানী হাসপাতালে পাঁচ হাজার কিট থাকবে উল্লেখ করে তিনি জানান, এর মধ্যে ৫০০ কিট মেশিনের সঙ্গেই চলে এসেছে। কলেজের অধ্যক্ষ ডা. ময়নুল হকের তত্ত্বাবধানে ল্যাব স্থাপনের কাজ চলছে। মাইক্রোবায়োলজি ডিপার্টমেন্টের বেশ কয়েকজন শিক্ষক আগে থেকেই এ বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত।

বরিশাল অফিস : বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে করোনাভাইরাস শনাক্তকরন পরীক্ষার ল্যাব আগামী তিন দিনের মধ্যে চালুর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। গতকাল জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে জেলার শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক সভায় এ নির্দেশ দেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ও সদর আসনের সংসদ সদস্য কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামিম।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর : ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য একটি ল্যাব স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। হাসপাতালের পরিচালক সাইফুর রহমান জানান, এরই মধ্যে এসংক্রান্ত একটি প্রস্তাব স্বাস্থ্যসচিবের কাছে পাঠিয়েছেন মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ এস এম খবিরুল ইসলাম। ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন জানান, ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা রোগী পরীক্ষার জন্য একটি ল্যাব স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ প্রস্তাবে গত সোমবার সম্মতি দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। খন্দকার মোশাররফ জানান, আগামী দু-এক দিনের মধ্যেই ফরিদপুরে এসংক্রান্ত ল্যাবটি চালু করা সম্ভব হবে। ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে গতকাল পর্যন্ত সর্দি, জ্বর ও গলা ব্যথা জাতীয় উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া একজন রোগীর চিকিৎসা চলছে। তবে তার মধ্যে করোনাভাইরাসজনিত কোনো সমস্যা দেখা যায়নি। ফরিদপুরের সিভিল সার্জন ছিদ্দিকুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে। এ নিয়ে বর্তমানে ফরিদপুরে হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছে এক হাজার ৬৭৫ জন। কোয়ারেন্টিনের সময়সীমা পার করায় গতকাল আরো ১৬৪ জনকে মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে এ পর্যন্ত মোট এক হাজার ৬২ জনকে মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে।

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার : দেশের প্রধান পর্যটন শহর কক্সবাজারেও আগামী দু-এক দিনের মধ্যে শুরু হবে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষা। কক্সবাজার সরকারি মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে এরই মধ্যে করোনাভাইরাস পরীক্ষার যাবতীয় কাজ শেষ করা হয়েছে। মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. অনুপম বড়ুয়া গতকাল কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন, আইইডিসিআর থেকে টেকনিশিয়ান টিম এসেই ল্যাবের কাজ শুরু করেছে। এই টিমের সদস্যরা কক্সবাজার স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীদের প্রশিক্ষণও দিচ্ছেন, যাতে স্থানীয় স্বাস্থ্যকর্মীরাই পরীক্ষা চালিয়ে নিতে পারেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যদি করোনা সন্দেহে রোগী আসে, তাহলে আজ থেকেই শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু হবে। তবে এ ক্ষেত্রে রোগীরা সরাসরি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আসবে না। বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র বা আইসোলেশন সেন্টার থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় রোগীকে এখানে আনা হবে। জেলা সিভিল সার্জন ডা. এ কে এম মশিউল আলম জানান, জেলায় কোনো করোনা সন্দেহের রোগী তাঁদের গোচরে নেই। এমন রোগী এলে তাঁরা সঙ্গে সঙ্গেই পরীক্ষার উদ্যোগ নেবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা