kalerkantho

শনিবার । ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৬ জুন ২০২০। ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক

পণ্যবাহী পিকআপে যাত্রী বহন

চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

২৯ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনাভাইরাস সতর্কতায় গণপরিবহন নিষিদ্ধ করেছে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়। এ সুযোগে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লায় পণ্যবাহী পিকআপে মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে চলছে যাত্রী পরিবহন। শুক্র ও শনিবার মহাসড়কের দাউদকান্দি থেকে ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট এলাকা পর্যন্ত ঘুরে দেখা গেছে পণ্যবাহী ট্রাক-পিকআপ ভ্যানে চলছে যাত্রী পরিবহন। যাত্রী বহনরত প্রতিটি পিকআপ শিশু ও নারী-পুরুষে বোঝাই, তিল ধারণের ঠাঁই নেই কোথাও।

অধিকাংশ যাত্রীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, লম্বা ছুটিতে আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছেন তাঁরা। মহাসড়কে যাত্রীদের চাপ থাকায় পণ্য পরিবহনকারী ট্রাক ও পিকআপের চালকরা দুর্ঘটনার ঝুঁকিকে পাত্তা না দিয়ে বেআইনি উপায়ে পকেট ভারী করে নিচ্ছেন, হাতিয়ে নিচ্ছেন অতিরিক্ত ভাড়া।

মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাসের ন্যায় যাত্রী বহনকারী ওই সব ট্রাক-পিকআপ ভ্যান অনায়াসে মিলছে। এসব বাহনে যাতায়াতে যাত্রীদেরও আগ্রহের কমতি নেই। ট্রাক-পিকআপে গাদাগাদি করে দলে দলে মানুষ ছুটছে এক উপজেলা থেকে আরেক উপজেলায়। অনেকেই কয়েকবার বাহন বদল করে চলে যাচ্ছে এক জেলা থেকে আরেক জেলায়।

মহাসড়কের চান্দিনা-বাগুর বাসস্টেশনে কথা হয় যাত্রী রহিমা বেগমের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমি মাধাইয়া থেকে এসেছি, কুমিল্লা যাব। ছেলেমেয়ের স্কুল বন্ধ তাই বোনের বাড়িতে রওনা হয়েছি। এই পিকআপটি ক্যান্টনমেন্ট যাবে। প্রতিজন ৫০ টাকা ভাড়ায় উঠেছি।’

বিপরীত দিক থেকে আসা অপর একটি পিকআপের একাধিক যাত্রী জানান, এই গাড়িটি ক্যান্টনমেন্ট থেকে এসেছে। ২০ টাকা বাসভাড়ার স্থলে পিকআপে ৪০ টাকা  নিচ্ছে। আবার কোরপাই থেকে চান্দিনায় ভাড়া ৫ টাকা; সেখানে নিচ্ছে ২০ টাকা।

এ ব্যাপারে হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কুমিল্লা অঞ্চল) রহমত উল্লাহ অপু বলেন, ‘আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পণ্য পরিবহনের গাড়িতে যাত্রী পরিবহন করা দেখা মাত্রই ব্যবস্থা নিচ্ছে হাইওয়ে পুলিশ।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা