kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩০ আষাঢ় ১৪২৭। ১৪ জুলাই ২০২০। ২২ জিলকদ ১৪৪১

কালই হবে তিন আসনের উপনির্বাচন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়তে থাকায় জনসমাগম হয় এমন প্রায় সব অনুষ্ঠান স্থগিত করা হলেও ঢাকা-১০, গাইবান্ধা-৩ ও বাগেরহাট-৪ আসনের উপ-নির্বাচন চালিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এই তিন উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে আগামীকাল শনিবার।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে গতকাল নির্বাচন ভবনে কমিশন সভায় এ সিদ্ধান্ত হয় বলে জানিয়েছেন ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তবে ২৯ মার্চ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন এবং বগুড়া-১ ও যশোর-৩ আসনের উপনির্বাচনের ভোট হবে কি না, সেই সিদ্ধান্ত নির্বাচন কমিশন কাল শনিবার নেবে বলে জানান তিনি। জানা গেছে, বৈঠকে প্রথমে তিন নির্বাচন কমিশনার ভোট বন্ধের পক্ষে থাকলেও পরে ভোট অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত হয়।

সচিব মো. আলমগীর বলেন, ঢাকা-১০ আসনসহ তিন উপনির্বাচনের সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। ঢাকায় হবে ইভিএমে ভোট। তাই ভোটকেন্দ্রে হ্যান্ড স্যানিটাইজার থাকবে। ভোটাররা হাত ধুয়ে ভোট দেবেন আবার ভোট দিয়ে হাত ধুয়ে বের হবেন। আইন অনুযায়ী ভোটার উপস্থিতি কম হলে কিছু হয় না। যিনি ভোট বেশি পাবেন, তিনি নির্বাচিত হবেন। যদি এক ভোট হয় সেটাও নির্বাচন।

ইসি সচিব বলেন, পরিস্থিতি বিবেচনায় চট্টগ্রাম সিটি, বগুড়া-১ ও যশোর-৩ আসনের উপনির্বাচনের বিষয়ে গত শনিবার কমিশনের সভায় আলোচনা করে সিদ্ধান্ত হবে। ৩১ মার্চ পর্যন্ত ভোটার আইডি সেবা বন্ধ থাকবে। অনেক প্রবাসী দেশে এসেছেন। তাঁদের অনেকে ভোটার হতে উপজেলা কার্যালয়ে যান। তাঁদের মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়াতে পারে—এ আশঙ্কায় ভোটার রেজিস্ট্রেশন, ভোটার আইডির সেবা বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, ‘আপনাদের কথাই প্রমাণ হয় ভোটার উপস্থিতি কম, করোনাভাইরাসের কারণে আরও কম হবে অতএব এখানে ঝুঁকি নাই। গণতন্ত্রে বলছে যদি একটি ভোট হয় সেটাও নির্বাচন। যেহেতু সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা আছে সেটা করতে হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা