kalerkantho

রবিবার । ২৮ আষাঢ় ১৪২৭। ১২ জুলাই ২০২০। ২০ জিলকদ ১৪৪১

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার আপাতত খুলছে না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার আপাতত খুলছে না

সৌদি আরব ও আরব আমিরাতের পরই বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শ্রমবাজার মালয়েশিয়া। প্রায় দেড় বছর ধরে এই বাজারটি বন্ধ রয়েছে। ফের খুলছে খুলছে বলেও শেষ পর্যন্ত মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারটি শিগগিরই আর খুলছে না। আগামীকাল বুধবার মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম কুলাসেগেরানসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বাজার খোলা নিয়ে ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির’ বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও সেটি আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। ওই বৈঠকেই বাংলাদেশিদের জন্য মালয়েশীয় শ্রমবাজার খোলার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা থাকলেও সেটা আপাতত হচ্ছে না। হঠাত্ করে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের পদত্যাগ এবং পরে তাঁকে ফের অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়ায় বৈঠকটি হচ্ছে না। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করেছিলেন, আগামী মার্চ থেকেই সেখানে নতুন করে শ্রমিক পাঠানো শুরু হবে। কিন্তু দেশটিতে বর্তমানে চলমান রাজনৈতিক নাটকীয়তার বাতাবরণে শিগগিরই সেটি সম্ভব হচ্ছে না। ইতিমধ্যে বাংলাদেশে আসা মালয়েশিয়ার প্রতিনিধিরাও নিজ দেশে ফিরে গেছেন।

বিষয়টি কালের কণ্ঠকে নিশ্চিত করেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন। শ্রমবাজার বন্ধের বিষয়ে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদও বলেন, “শ্রমিক পাঠানো নিয়ে মালয়েশিয়ার সঙ্গে আমাদের প্রাথমিক বৈঠক হয়েছে। ২৬ তারিখের ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির’ বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু হঠাত্ করে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদসহ তাঁর কেবিনেটের (মন্ত্রিপরিষদ) পদত্যাগের কারণে বৈঠকটি আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। আশা করি, দ্রুত এটি অনুষ্ঠিত হবে এবং দেশটিতে ফের আমরা শ্রমিক পাঠাতে পারব।”

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সির (বায়রা) মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী নোমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মালয়েশিয়ার রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে উভয় দেশের বৈঠকটি আপাতত হচ্ছে না। রাজনৈতিক পরিস্থিতি ঠিক হয়ে গেলে কিংবা নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী আসলে আবার এটা চালু হবে। কারণ মালয়েশিয়া নিজেরাই তাদের পার্লামেন্টে ঘোষণা দিয়েছে, তাদের সাড়ে ছয় লাখ কর্মী লাগবে। যেহেতু বাংলাদেশ একটি বড় আউটসোর্সিং কান্ট্রি, আমাদের যেমন লোক দেওয়ার কথা, ওদেরও লোক নেওয়ার কথা। তাই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই বাজারটি খুব দ্রুতই চালু হবে।’

গতকাল সোমবার দুপুরে হঠাত্ প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেন মাহাথির মোহাম্মদ। ভেঙে দেওয়া হয় মন্ত্রিপরিষদও। পদত্যাগের পর স্থানীয় সময় বিকেল ৫টায় তিনি মালয়েশিয়ার রাজা সুলতান আবদুল্লাহর সঙ্গে দেখা করতে রাজপ্রাসাদে যান। এ সময় ফের তাঁকে দেশটির অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন সুলতান আব্দুল্লাহ।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে মালয়েশিয়ায় শ্রমিক রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। এরপর বাজারটি উন্মুক্ত করতে কয়েক দফা বৈঠক ও চিঠি চালাচালির পরও তা আর হয়নি। গেল বছরের ৬ নভেম্বর মালয়েশিয়ায় দুই দেশের মন্ত্রিপর্যায়ের বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয় এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা