kalerkantho

রবিবার । ৯ কার্তিক ১৪২৭। ২৫ অক্টোবর ২০২০। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

দেশে প্রথম বিকল রেল ইঞ্জিন সচল

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রেলপথে চলতে গিয়ে আগুনে পুড়ে সম্পূর্ণ বিকল হয়ে পড়া একটি রেলওয়ে লোকোমোটিভ (ইঞ্জিন) সচল করা হয়েছে। দিনাজপুরের পার্বতীপুরের কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় (কেলোকা) ওই ইঞ্জিনটি মেরামত করে সচল করা হয়। দেশে মেরামত করে ইঞ্জিন সচল করার ঘটনা এটাই প্রথম। সচল ইঞ্জিনটি আজ মঙ্গলবার রেলবহরে যুক্ত করা হচ্ছে।

রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জাপান সরকারের আর্থিক সহায়তায় ১১টি ইঞ্জিন আমদানি করা হয় ২০১৩ সালে। ওই ইঞ্জিনগুলো দক্ষিণ কোরিয়ার হুন্দাই রোটেম কম্পানিতে তৈরি এমইআই-১৫ শ্রেণির। বিশ্বমানের এসব ইঞ্জিন দিয়ে দেশের ভেতরে বিভিন্ন রেলপথে ট্রেন পরিচালনা করা হচ্ছে। এদিকে ২০১৩ সালে ৭ অক্টোবর ২৯৩৩ নম্বর ইঞ্জিনটি ঢাকা-সিলেট রেলপথে আন্তঃনগর পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেনটিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছিল। এ অবস্থায় হবিগঞ্জের মাধবপুর নোয়াপাড়া স্টেশনে ওই ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়। দুর্ঘটনায় পতিত হলে ইঞ্জিনটির নিচের অংশের জ্বালানি ট্যাংকে আগুন ধরে পুড়ে যায়। ফলে তা সম্পূর্ণ বিকল হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় পুড়ে যাওয়া ইঞ্জিনটি চট্টগ্রামের পাহাড়তলী ডিজেল শপে নেওয়া হয়। ইঞ্জিনটি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সেখানে তা কোনোভাবেই মেরামত করা যাচ্ছিল না। পরে ২০১৯ সালের ১৫ মে ইঞ্জিনটি মেরামতের জন্য দিনাজপুরের পার্বতীপুর কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় (কেলোকা) পাঠানো হয়। এরপর সেখানে ইঞ্জিনটি সম্পূর্ণ খুলে ফেলা হয়। পরে কারখানার শ্রমিক-প্রকৌশলীরা ইঞ্জিনটি পুনর্নির্মাণে কাজ শুরু করেন। রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ মেরামত ও সংযোজনের পর তা সচল করা হয়েছে। শুধু তা-ই নয়, আগুনে পুড়ে ইঞ্জিনটি ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিকস ব্যবস্থাও সম্পূর্ণ অচল হয়ে পড়েছিল, যা প্রতিস্থাপন করে সফলতা দেখিয়েছেন কেলোকা শ্রমিক ও প্রকৌশলীরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা