kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৯ চৈত্র ১৪২৬। ২ এপ্রিল ২০২০। ৭ শাবান ১৪৪১

পোশাককর্মীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

ছাত্রীকে ‘ধর্ষণচেষ্টা’, গ্রেপ্তার প্রধান শিক্ষক দুই ধর্ষণ মামলার তিন আসামি গ্রেপ্তার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পোশাককর্মীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলায় পোশাক কারখানার এক কর্মীকে (১৭) বাসায় ১০ দিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে অটোরিকশাচালকের বিরুদ্ধে। ময়মনসিংহের ভালুকায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে এক ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ছাত্রীটির মা ভালুকা মডেল থানায় মামলা দায়েরের পর দুপুরে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এদিকে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে দুই বছরের শিশু ধর্ষণ মামলার এক আসামি এবং রাজবাড়ীতে ওরসযাত্রীবাহী ট্রেন দেখানোর কথা বলে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) : গত ৮ ফেব্রুয়ারির ঘটনায় ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার মজিদনগরের নুরনবীর ছেলে মো. কাইয়ুমকে (২৬) আসামি করে নির্যাতিতা তরুণীর বাবা গত মঙ্গলবার রাতে আনোয়ারা থানায় ধর্ষণ মামলা করেছেন। কাইয়ুম আনোয়ারায় সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালান এবং উপজেলার বটতলী এলাকার শাহজাহানের ঘরে ভাড়া থাকেন। আনোয়ারায় কেইপিজেডের কর্মী তরুণীটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। প্রাথমিক পরীক্ষায় তাকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন আনোয়ারা থানার উপপরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুব্রত চৌধুরী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ৮ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় কারখানার কাজ শেষে বাড়ি যেতে অটোরিকশায় ওঠে তরুণীটি। চালক মো. কাইয়ুম তরুণীকে গন্তব্যে না নিয়ে বারশত ইউনিয়নের বোয়ালিয়া গ্রামের জসিম উদ্দিনের ঘরে (বাসা) নিয়ে যান। সেখানে তাকে ১০ দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করেন কাইয়ুম। এ সময় তিনি তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিলেও করেননি। বরং ১৮ ফেব্রুয়ারি তার কাছ থেকে টাকা ও মোবাইল ফোনসেট কেড়ে নিয়ে তাকে বাসা থেকে বের করে দেন। তরুণী তার নানাবাড়িতে আশ্রয় নেয়। পরিবার ওই দিনই তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায়।

তদন্ত কর্মকর্তা সুব্রত চৌধুরী বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে অভিযুক্ত কাইয়ুমকে গ্রেপ্তার করা হবে। তিনি পলাতক।

ভালুকা (ময়মনসিংহ) : ভালুকায় গ্রেপ্তার মো. হাবিবুর রহমান উপজেলার ডাকাতিয়া ইউনিয়নের বালিয়াগাড়া নছিরন নহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও ডাকাতিয়ার ঢালুয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। ছাত্রীটির পরিবার জানায়, হাবিবুর রহমান গত রবিবার দুপুরে বিদ্যালয় ভবনের ছাদ ঝাড়ু দেওয়ার জন্য ছাত্রীটিকে ডেকে ছাদের কাছে সিঁড়িতে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালান। এ সময় চিৎকার দিয়ে রক্ষা পায় ছাত্রীটি। পরে ঘটনাটি কাউকে না বলতে তাকে পুলিশের ভয় দেখানো হয়।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুয়েল আশরাফ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিষয়টি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে এবং শিক্ষক হাবিবুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্তের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

বিদ্যালয়টির পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর শিক্ষক হাবিবুর রহমান আগের একাধিক কর্মস্থলেও একই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে।’

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) : বুধবার দিবাগত রাতে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী খান ব্রাদার্স পেট্রল পাম্পের মোড় থেকে আসামি আকরাম মিয়াকে গ্রেপ্তার করেন র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা। তিনি মানিকদী পাড়াতলা গ্রামের মিলন মিয়ার ছেলে।

র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের কম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দিন মোহাম্মদ যোবায়ের গতকাল র‌্যাব ক্যাম্পে সংবাদ সম্মেলনে জানান, ১৫ জানুয়ারি সন্ধ্যায় শিশুটিকে তাদের ঘর থেকে তাঁর ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করেন আকরাম। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা পরদিন ভৈরব থানায় মামলা করেন। র‌্যাব ছায়া তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পায়। জিজ্ঞাসাবাদে আকরাম ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন।

রাজবাড়ী : গত শনিবারের ঘটনায় বুধবার রাতে গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ইদ্রিস মণ্ডলের পাড়ার বাদল সরদারের ছেলে রাজ্জাক সরদার (২৪) এবং বাইরচর দৌলতদিয়ার সাত্তার মণ্ডলের পাড়ার মনির ফকিরের ছেলে জুয়েল ফকির (২৫)। জুয়েল দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া পথে ফেরিতে ডাকাতির মামলায় জামিনে আছেন।

জানা গেছে, শনিবার সন্ধ্যায় রাজবাড়ী রেলস্টেশন থেকে ওরসযাত্রীদের নিয়ে ভারতগামী ট্রেন দেখানোর কথা বলে রাজ্জাক কৌশলে জুয়েলের মোটরসাইকেলে করে ছাত্রীটিকে নিজ বাড়ির সামনে থেকে তুলে নিয়ে পাশের ফরিদপুর শহরে যান। সেখানে একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন রাজ্জাক।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার মেয়েটির বোন রাজ্জাক, জুয়েলসহ তিনজনের নামে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা