kalerkantho

শুক্রবার । ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭। ৭ আগস্ট  ২০২০। ১৬ জিলহজ ১৪৪১

পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের চিন্তা ভারতের

আসিফ সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম   

২৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নতুন মৌসুমে পেঁয়াজের উৎপাদন ও সরবরাহ বাড়ার কারণে ভারতের অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের দাম কমেছে। এ অবস্থায় পেঁয়াজ রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার চিন্তাভাবনা করছে ভারত।

দেশটির গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

ভারতের নতুন এই পরিকল্পনা আঁচ করতে পেরে গত শনিবার রংপুরে বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ঘোষণা দিয়েছেন, ভারত থেকে আর পেঁয়াজ আমদানি করবেন না। দেশের পেঁয়াজ উৎপাদন বাড়িয়েই চাহিদা মেটানোর পরিকল্পনা তাঁর।

দেশের পেঁয়াজ আমদানিকারকরা বাণিজ্যমন্ত্রীর এ বক্তব্যের প্রশংসা করলেও পুরোপুরি আশ্বস্ত হতে পারছেন না। কারণ শেষ মুহূর্তে এসে যদি এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তিত হয়, তাহলে পেঁয়াজ নিয়ে আবারও বিপর্যয় ঘটবে। নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের খবরে জানুয়ারির শুরু থেকেই নতুন করে কেউ পেঁয়াজ আমদানি করছেন না। আমদানির জন্য অনুমতিপত্রও নিচ্ছেন না। আগে যাঁরা ঋণপত্র খুলে জাহাজে পেঁয়াজ আনছেন তাঁরাও আতঙ্কে আছেন। কারণ তাঁদের ধারণা, ভারতের পেঁয়াজ দেশে ঢুকলেই অন্যান্য দেশের পেঁয়াজ পানির দরে বিক্রি করতে বাধ্য হতে হবে।

চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের কাঁচা পণ্য আড়তদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইদ্রিস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অনেক আগে থেকেই সরকারের কাছ থেকে এমন বক্তব্য আমরা চেয়ে আসছি। এই বক্তব্য এক মাস আগে দিলেই বাজার এতটা টালমাটাল হতো না। কারণ অন্য যেকোনো দেশের পেঁয়াজ দেশে আসুক না কেন, ভারত থেকে আসার খবর শুনলেই সবাই আতঙ্কে থাকেন। এই আতঙ্কের অবসান চাই আমরা।’

বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে বিভিন্ন দেশ থেকে এবং টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মিয়ানমার ও চীন থেকে পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। একই সঙ্গে দেশেও উৎপাদিত হচ্ছে অনেক পেঁয়াজ। ফলে সরবরাহ আগের চেয়ে বেড়েছে। এদিকে দেশের পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে গতকাল রবিবারও সব ধরনের আমদানি করা পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৫০ থেকে সর্বোচ্চ ৭৫ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে ৫৫ টাকা দরে সবচেয়ে কম দামে বিক্রি হয়েছে চীনের পেঁয়াজ। এ ছাড়া মিয়ানমারের পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৭৫ টাকা, পাকিস্তানের পেঁয়াজ ৬৫ থেকে ৭০ টাকা, তুরস্কের পেঁয়াজ ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, মিসরের পেঁয়াজ ৫৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এক সপ্তাহ আগের তুলনায় দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত কমেছে।

এদিকে ভারতের গণমাধ্যম ফিন্যানশিয়াল এক্সপ্রেসের গত বুধবারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নতুন মৌসুমের পেঁয়াজের কারণে ভারতের অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের দাম কমেছে। এ কারণে রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার ব্যাপারে দেশটির কৃষিমন্ত্রী, ভোক্তা অধিকার মন্ত্রী ও বাণিজ্যমন্ত্রীর মধ্যে আলোচনা চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা