kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ কার্তিক ১৪২৭। ২৭ অক্টোবর ২০২০। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

পঞ্চগড়ে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ, নিহত ১

পঞ্চগড় প্রতিনিধি   

২৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পঞ্চগড়ে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ, নিহত ১

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় গতকাল পুলিশ ও পাথর শ্রমিকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় নিহত হয় এক বৃদ্ধ। আহত হয় র‌্যাব ও পুুলিশের ১১ সদস্যসহ কমপক্ষে ৩০ জন। ছবি : কালের কণ্ঠ

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় গতকাল রবিবার সকালে পুলিশ ও পাথর শ্রমিকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি সামাল দিতে টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছুড়েছে। এ ঘটনায় এক বৃদ্ধ নিহত এবং র‌্যাব ও পুুলিশের ১১ সদস্যসহ কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে। নিহত জুমার উদ্দিনের (৬০) বাড়ি পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ার ভজনপুর ইউনিয়নের গনাগছ এলাকায়। উত্তেজিত শ্রমিকরা পুলিশের চারটি গাড়ি ভাঙচুর করেছে। ওই এলাকায় এখনো থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত শনিবার রাতে মাটি খনন করে পাথর তোলার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার দাবিতে সড়ক অবরোধের ঘোষণা দেয় তেঁতুলিয়ার ভজনপুর এলাকার পাথর শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা। ঘোষণা অনুযায়ী গতকাল রবিবার সকাল থেকে ভজনপুর বাজারে অবস্থান নেয় কয়েক হাজার পাথর শ্রমিক। তারা লাঠিসোঁটা নিয়ে পঞ্চগড়-তেঁতুলিয়া মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এ সময় পরিস্থিতি শান্ত করতে ওই এলাকায় বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পুলিশ অবরোধ তুলে নিতে অনুরোধ জানালে শ্রমিকরা মারমুখী হয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ সময় গণমাধ্যমকর্মীদেরও অবরুদ্ধ করে রাখে তারা। পুলিশও শ্রমিকদের ওপর চড়াও হয়। একপর্যায়ে পুলিশ পরিস্থিতি সামাল দিতে টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে। সংঘর্ষে একজন নিহত এবং পুলিশ ও র‌্যাবের ১১ সদস্যসহ কমপক্ষে ৩০ জন আহত হন। গুরুতর আহত চারজনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাঁরা হলেন ভজনপুর এলাকার আজিবুদ্দিন (৩৫), বুড়াবুড়ি-বালাবড়ি এলাকার শহিদুল (৪০), দেবনগর-হাওয়াজোত এলাকার ভোম্বল (৪৫) ও ভজনপুর এলাকার করিমুল (৫২)।

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পুলিশ সদস্যরা হলেন নায়েক মেহেদী হাসান, কনস্টেবল জয়ন্ত কুমার ও ইমতিয়াজ। আহত র‌্যাব সদস্যরা হলেন নীলফামারী র‌্যাব-১৩-র ডিএডি আবু বক্কর, র‌্যাব সদস্য ফেরদৌস রনি ও সাইদুল ইসলাম।

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. সিরাজউদ্দৌলা জানান, জুমার উদ্দিনের শরীরে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। তবে কী কারণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে তা ময়নাতদন্ত ছাড়া বলা যাবে না।

পঞ্চগড়ের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী বলেন, বোমা মেশিন চক্রের সদস্যরা শ্রমিকদের উসকানি দিয়ে মাঠে নামিয়েছে। তারা অবৈধভাবে পাথর তোলার দাবি করছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

কয়েক বছর ধরে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় নিষিদ্ধ বোমা মেশিন দিয়ে পাথর তুলছিল একটি চক্র।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা